কেন বছরের শ্রেষ্ঠ সিনেমার মর্যাদা পেয়েছিল আলফানসো কুয়েরনের রোমা?

কেন বছরের শ্রেষ্ঠ সিনেমার মর্যাদা পেয়েছিল আলফানসো কুয়েরনের রোমা?
14 Sep 2021, 09:11 PM

কেন বছরের শ্রেষ্ঠ সিনেমার মর্যাদা পেয়েছিল আলফানসো কুয়েরনের রোমা?

 

ফিল্মের নাম: রোমা

ডাইরেক্টর: Alfonso Cuaron

দেশ: মেক্সিকো

সাল: ২০১৮

‘ব্যক্তিগত ডায়েরি থেকে মাস্টারপিস’

আলোচনা করলেন

 

দীপশিখা পোদ্দার

 

১৯৭০ এর দশক। মেক্সিকো সিটির গা ঘেঁষা জেলা রোমার একটি রাস্তা আমাদেরকে রাস্তার ওপারে বন্ধ দরজার ভেতরে নিয়ে যাবার জন্য অপেক্ষা করে আছে। এই বন্ধ দরজার ওপারে আছে পরিচালক আলফনসো কুয়েরনের শৈশব, তাঁর ভাইবোনদের সাথে বেড়ে ওঠার জগৎ, কমবয়সী প্রেমিকার প্রেমে পড়ে পরিবার ছেড়ে চলে যাওয়া ডাক্তার বাবা, বাচ্চাদের জন্য উদ্বিগ্ন মা, দিদা, পরিচারিকা ক্লিও, কুক আদেলা, এবং একজন অবহেলিত কুকুর বরিস। ফিল্মের মূল চরিত্র নেটিভ অ্যামেরিকান পরিচারিকা ক্লিও, এমন এক চরিত্র যার স্থান সমাজ এবং সিনেমায় সাইডে থাকে, অন্যান্য ফিল্মে যাকে আমরা ব্যাকগ্রাউন্ডে দেখতে অভ্যস্ত। সেই পরিচারিকাই এই গল্পের কেন্দ্রবিন্দু। আত্মজীবনীমূলক ফিল্ম রোমাই হল প্রথম মেক্সিকান ফিল্ম যা ‘বেস্ট ফরেন ল্যাঙ্গুয়েজ ফিল্ম’ হিসেবে অস্কার পায়। ভেনিস ইন্টারন্যাশানাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে গোল্ডেন লায়ন পুরুস্কার জেতে রোমা এবং বহূ আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে নিজের জায়গা করে নেয়।

 

ছবিটির প্রেক্ষাপট ১৯৭০ এর মেক্সিকোর রাজনৈতিক উত্থান এবং একটি পরিবার যেখানে একটি বিবাহিত সম্পর্ক শেষ হচ্ছে। ছবির শুরু হচ্ছে পরিবারের একটা ভালো সময় দিয়ে। শুরুর দিকেই আমরা দেখতে পাই ডাক্তার বাবা অ্যান্টনিও সেদিন তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরছেন। টিভির সামনে সোফায় বসে হাসি খুশির মূহুর্ত কাটাচ্ছেন অ্যান্টনিও, তাঁর স্ত্রী সোফিয়া, চার ছেলে মেয়ে পেপে, সোফি, টোনো, পাকোকে সঙ্গে নিয়ে। একটু পরে এসেই যোগদান করছে ক্লিও তাদের সাথে হাসি বিনিময় করে এবং পরিবারের একজনের মতই কাছে এসে বসছে। হয়ত পরিচালকের এটাই শেষ খুশির মূহুর্ত তাঁর মা বাবা এবং পুরো পরিবারের সাথে একসাথে। তারপর আমরা দেখতে পাই বাবা অ্যান্টনিও কানাডায় যাবার জন্য বেরিয়ে যাচ্ছেন। যার ফিরে আসার কথা মাত্র কয়েক সপ্তাহ পরেই, কিন্তু তিনি আর কোনোদিনও ফিরছেন না, তাঁকে আমরা দেখতে পাচ্ছি পরে দু এক ঝলকের জন্য একই শহরে, কিন্তু বাড়ি তিনি আর কোনোদিনই ফিরছেন না।  ক্লিওর জীবনের মধ্য দিয়েও আমরা এগিয়ে চলেছি। দেখছি তার অদ্ভূত প্রেম, প্রেমিক যেখানে বিছানায় আসার আগে বাথরুমের শাওয়ারের রড নিয়ে উলঙ্গ হয়ে মার্শাল আর্ট দেখাচ্ছে। এই প্রেমিকই তার গর্ভাবস্থার কথা শুনে সিনেমা হলে বাথরুমে যাবে বলে তাকে ছেড়ে দিয়ে চলে যাচ্ছে কোনোদিনও না ফেরার পথে। আবার এই প্রেমিকই ফিরে আসছে গর্ভবতী ক্লিওর মাথায় বন্ধুক ঠেকিয়ে তাকে মেরে ফেলার ভয় দেখাতে, প্রচন্ড ভয়ে ক্লিওর পেটের ভেতরের জল ভেঙ্গে যাচ্ছে। পুরো ফিল্মটি দেখানো হয়েছে ব্ল্যাক অ্যান্ড হোয়াইটে যেন পুরো ফিল্মটাই একটা ফ্ল্যাশ ব্যাক, পরিচালকের জীবনের এবং ফিল্মটির ক্যামেরা করেছেন পরিচালক স্বয়ং। তাঁর ক্যামেরা সপ্রতিভ এবং অপ্রতিরোধ্য। ভয়ঙ্কর মর্মান্তিক সব দৃশ্যেও। হসপিটালে সার্জারি করার পরে ক্লিও মৃত সন্তানের জন্ম দিচ্ছে, ডাক্তাররা তাকে শেষ বারের মত জড়িয়ে ধরতে দিচ্ছেন বাচ্চাটিকে কয়েক সেকেন্ডের জন্য, নার্সরা তাড়া দিচ্ছে মৃত বাচ্চাটিকে নিয়ে যাবার জন্য। বা সেখানেও পরিচালক থামছেন না যেখানে আমরা দেখছি ক্লিওর চোখ দিয়ে হসপিটালের বাচ্চাদের যে ঘরে রাখা হয় পরে সেই ঘরে ভূমিকম্প হচ্ছে এবং একটি বাচ্চার কাঁচের ঘরের ওপরে পড়ে আছে কংক্রিটের খন্ড খন্ড অংশ।

ফিল্মের কোথাও পরিচালক ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ব্যাবহার করেন নি। কিন্তু অত্যন্ত সতঃস্ফূর্তভাবে বেজেছে কিছু গান তাঁর বাবার বা পরে মায়ের গাড়িতে যা চরিত্রায়নে সাহায্য করেছে। কিন্তু ক্লিওর চরিত্রে বা ক্লিওর গল্পে কোথাও কোনও মিউজিক শোনা যায় না, তখনও না যখন সে তার সন্তান হারানোর পর চুপচাপ বসে আছে একটা ঘরে, ভীষণ নিঃস্তব্ধতা। শুধু দূর থেকে শোনা যায় ফেরিওয়ালার বাঁশীর আওয়াজ এবং বাড়ির কুকুরের ডাক। নবাগতা ইয়ালিটজা অ্যাপারাসিও ক্লিওর চরিত্রে অভিনয় করেছেন এবং এটি তাঁর প্রথম সিনেমা। তাঁর অভিনয়ের জন্য তিনি অস্কারে মনোনীতও হন।

আসলে ফিল্মে এই ক্লিও চরিত্রটি ছিল পরিচালকের বাড়ির আসল পরিচারিকা লিবোর, পরিচালক সিনেমার শেষে যাকে সিনেমাটি উৎসর্গ করেছেন। যিনি সন্তান স্নেহে পরিচালক এবং তাঁর ভাইবোনেদের বড় করেছিলেন, ঠিক সিনেমায় যেমন দেখানো হয়েছে। সাঁতার না জেনেও বাচ্চাদের বাঁচাতে সমুদ্রে ঝাঁপিয়েছিলেন। বিশাল ফ্রেম এবং ডিটেলিং, অনবদ্য চরিত্রায়ণ এবং গল্প বলার স্টাইল সব কিছু মিলিয়ে অনেক ক্রিটিক ই রোমা কে সেবছরের শ্রেষ্ট সিনেমার আখ্যা দিয়েছেন।

ads

Mailing List