করোনার কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হল বিদ্যাসাগর বালিকা বিদ্যাপীঠ

করোনার কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হল বিদ্যাসাগর বালিকা বিদ্যাপীঠ
07 Apr 2021, 09:01 PM

করোনার কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হল বিদ্যাসাগর বালিকা বিদ্যাপীঠ

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন, মেদিনীপুর: অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হল মেদিনীপুর শহরের বিদ্যাসাগর বালিকা বিদ্যাপীঠ। স্কুল কর্তৃপক্ষ একটি নোটিশ দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে যে স্কুলের এক জনের ‘করোনা পরিস্থিতি’ হওয়ার কারণে তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন নবম থেকে একাদশ শ্রেণির ক্লাস চলছিল। ছাত্রীদের এখন স্কুলে আসতে বারণ করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে কবে থেকে আবার ক্লাস শুরু করা হবে তা পরে জানিয়ে দেওয়া হবে।   

স্কুলের এক স্টাফ করোনা আক্রান্ত হয়েছে, এই খবর পাওয়ার পরেই স্কুল ছুটি দিয়ে দিল বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। স্কুল কর্তৃপক্ষ নোটিশ দিয়ে জানিয়েছে, অনিদিষ্ট কালের জন্য বন্ধ থাকছে স্কুল। কবে খোলা হবে তা নোটিশ দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে। মেদিনীপুর শহরের বিদ্যাসাগর বিদ্যাপীঠ বালিকা বিদ্যালয়ে এমন নোটিশ পড়ায় বেশ চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। নির্বাচন হয়ে যাওয়ার পরেই খুলেছিল স্কুল। সেদিনই ওই স্টাফ এসেছিলেন স্কুলে। ওই স্টাফের পরিবারের সদস্যের কয়েকজন করোনা পজেটিভ হয়েছে বলে জানতে পারে স্কুল কর্তৃপক্ষ। তার পরেই নোটিশ দিয়ে স্কুল বন্ধ রাখার নোটিশ দেন পরিচালনা সমিতির সভাপতি আব্দুল ওয়াহেদ। তিনি বলেন, “এক স্টাফের করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসার পরে স্বাস্থ্য দফতরের সাথে যোগাযোগ করা হয়। ওই স্টাফের সাথে কোন শিক্ষিকা বা অন্যান্য কর্মীরা সংস্পর্শে এসেছিলেন কিনা তাও খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে। সবাইকে করেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে।” তবে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির পড়ুয়াদের কেউ ওই দিন তাঁর সংস্পর্শে আসেননি বলেও জানতে পেরেছেন তিনি। “শিক্ষিকাদের বা অন্যান্য কর্মীদের নমুনা সংগ্রহ করা হবে, তার তালিকা স্বাস্থ্য দফতরে পাঠানো হয়েছে। এখন আপাতত স্কুলের পঠন পাঠন বন্ধ থাকছে। জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শককে বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে”, বলেও জানান তিনি।

এইদিকে স্কুলে নোটিশ দিয়ে জানানো হয়েছে যে  স্কুলে স্যানিটাইজেশন করা, শিক্ষিকাদের কোয়ারেন্টাইনে যাওয়া এবং ছাত্রীদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে আপাতত স্কুল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  

এদিকে গত তিনদিনে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ৬৮ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। খড়গপুর আইআইটি ক্যাম্পাসে ৮ জনের পজেটিভ রিপোর্ট এসেছে বলেও জানা গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে কি করা যাবে তা নিয়ে জেলা টাস্ক ফোর্সের মিটিং করেছেন জেলা শাসক রশ্মি কমল। সেই বৈঠকে স্বাস্থ্য দফতর , পুলিশ ও অন্যান্য দফতরের অধিরকারিকেরা হাজির ছিলেন।  জেলা শাসক বলেন, “জেলায় করোনা নমুনা সংগ্রহ আরও বাড়ানো হচ্ছে। তবে চিন্তার কিছু নেই। হাসপাতাল গুলিতে সব রকম ব্যবস্থা রয়েছে। খড়্গপুর এবং ঘাটাল মহকুমা হাসপাতালের পাশাপাশি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ছাড়াও শালবনী করোনা হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা রয়েছে।”

Mailing List