অধ্যক্ষের চেয়ারে তৃণমূল বিধায়ক, অধ্যক্ষ পাশের সোফায়, শান্তিপুর কলেজের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই তোলপাড়

অধ্যক্ষের চেয়ারে তৃণমূল বিধায়ক, অধ্যক্ষ পাশের সোফায়, শান্তিপুর কলেজের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই তোলপাড়
26 May 2022, 01:15 PM

অধ্যক্ষের চেয়ারে তৃণমূল বিধায়ক, অধ্যক্ষ পাশের সোফায়, শান্তিপুর কলেজের ছবি প্রকাশ্যে আসতেই তোলপাড়

 

কুহেলি দেবনাথ, শান্তিপুর

 

কলেজের অধ্যক্ষের চেয়ারে বসে রয়েছেন তৃণমূল বিধায়ক ব্রজকিশোর গোস্বামী। পাশে সোফাতে বসে রয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।  

এমনই একটি ছবি প্রকাশ্যে এলো। আর সেই ছবি প্রকাশ্যে আসতেই অবশ্য শোরগোল পড়ে গিয়েছে চারদিকে। কিভাবে একজন বিধায়ক কলেজের অধ্যক্ষের চেয়ারে বসতে পারেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন অনেকেই। এমনই ঘটনা দেখা গেল নদিয়া জেলার শান্তিপুর কলেজে।

অবশ্য অধ্যক্ষের চেয়ারে বসার বিষয়টি উড়িয়ে দিচ্ছেন না শান্তিপুরের তৃণমূল বিধায়ক ব্রজকিশোর গোস্বামী। তিনি জানান, গত ১৮ মে তিনি শান্তিপুর কলেজে গিয়েছিলেন। তখন অধ্যক্ষ তাঁকে নিজের চেম্বারে যেতে অনুরোধ জানান। তিনি তাঁর চেম্বারে যানও। অধ্যক্ষের চেম্বারে যাওয়ার পরই অধ্যক্ষ সবিনয়ে তাঁকে অধ্যক্ষের চেয়ারে বসতে অনুরোধ জানান। ব্রজকিশোরবাবু বলেন, ‘‘একজন অধ্যক্ষ যখন সবিনয়ে তাঁর চেয়ারে বসার অনুরোধ করছেন তখন আমি ফেলতে পারিনি। রাজনীতি দূরে সরিয়ে মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে অধ্যক্ষকে সম্মান জানাতেই বসেছিলাম। এটা কেই কেউ রাজনীতি করতেই পারেন। আসলে তৃণমূল সম্বন্ধে বিরোধীদের কুৎসা ও সমালোচনা করাই কাজ। সেটাই তাঁরা করছেন।’’

shantipur college

সোশ্যাল মিডিয়ায় সদ্য একটি ছবি ভাইরাল হয়েছে। সেই ছবিতে দেখা যায় শান্তিপুর কলেজের অধ্যক্ষর চেয়ারে বসে রয়েছেন শান্তিপুরের তৃণমূল বিধায়ক ব্রজকিশোর গোস্বামী।  আর পাশের একটি সোফাতে বসে রয়েছেন কলেজের অধ্যক্ষ চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। ছবিটি বিজেপির তরফ থেকেও সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল করা হয় বলে অভিযোগ। আর তারপরই নিন্দার ঝড় ওঠে। এ বিষয়ে শান্তিপুরে বিজেপি নেতা তথা অধ্যাপক সোমনাথ কর বলেন, ছবিটি দেখার পর অত্যন্ত খারাপ লেগেছে আমার। তার কারণ হল, শান্তিপুর কলেজ একটি ঐতিহ্যবাহী কলেজ। সেখানে এভাবে একজন রাজনৈতিক নেতা অধ্যক্ষের চেয়ারে বসতে পারেন না। আর এ বিষয়ে অধ্যক্ষারও জানা উচিত ছিল যে, তাঁর চেয়ারে কখনো অন্য কেউ বসতে পারেন না।’’

বিষয়টি নিয়ে শোরগোল পড়তেই অবশ্য শান্তিপুরের তৃণমূল বিধায়ক ব্রজোকিশোর গোস্বামী তা এড়িয়ে যাননি। শক্ত হাতে ডিফেন্ড করার চেষ্টা করেছেন। একটি যুক্তি দেওয়ারও চেষ্টা করেছেন। তিনি বলেন, আমি কলেজের গভর্ণিং বডির প্রেসিডেন্ট। কলেজের একটি বিষয়ে আলোচনার জন্য গিয়েছিলাম। তখন অধ্যক্ষ নিজেই হাত জোড় করে অনুরোধ করেন তাঁর চেয়ারে বসার জন্য। মানবিক দিক থেকেই সেই অনুরোধ ফেলতে পারিনি। তাই সেই চেয়ারে বসেছিলাম। এ বিষয়ে অধ্যক্ষ চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যও বিধায়কের কথার সূত্র ধরেই বলেন, আমি নিজেই বারবার অনুরোধ করেছিলাম আমার চেয়ারে বসার জন্য। সেই কারণে তিনি বসেছিলেন।

ads

Mailing List