দুয়ারে সরকারের পর জনসংযোগ বৃদ্ধি করতে আজ থেকেই 'দুয়ারে তৃণমূল কংগ্রেস'

দুয়ারে সরকারের পর জনসংযোগ বৃদ্ধি করতে আজ থেকেই 'দুয়ারে তৃণমূল কংগ্রেস'
21 Jan 2021, 01:15 PM

দুয়ারে সরকারের পর জনসংযোগ বৃদ্ধি করতে আজ থেকেই 'দুয়ারে তৃণমূল কংগ্রেস'

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন প্রতিটি জনসভায় গত দশ বছরে 'মা মাটি মানুষের সরকার' কী কী উন্নয়নমূলক কাজ করেছে তার খতিয়ান তুলে ধরছেন। একই সঙ্গে তিনি নিজে এবং তাঁর দলের নেতাদের দাবি, বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে এবার তৃতীয় বারের জন্য সরকার গঠন করবে তৃণমূল কংগ্রেসই।

আর বিজেপি দাবি করছে যে, এই বার রাজ্য থেকে বিদায় নেবে তৃণমূল কংগ্রেস। সেই সঙ্গে নিজেদের দাপট বাড়াচ্ছে পদ্ম শিবির। ঘাস ফুল ছেড়ে সাংসদ, বিধায়ক-সহ অনেকেই যোগ দিচ্ছেন পদ্ম শিবিরে।

 

রাজ্যে তারাই আবার ফিরছে বলে দাবি করার পরেও কী তাহলে আত্মবিশ্বাসে কোথাও ফাটল ধরছে ঘাস ফুল শিবিরে? জনসংযোগ কী কমছে? মানুষ কী মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে তাঁদের দিক থেকে? এই প্রশ্ন উঠেছে । আর সেই কারণে এবার দলের কর্মীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে জনসংযোগ বৃদ্ধি করতে হবে।

 

এলাকার মানুষের সমস্যা সমাধানের জন্য রাজ্য সরকার 'পাড়ায় সমাধান' কর্মসূচি শুরু করার সাথেই নিয়েছে  'দুয়ারে সরকার'  কর্মসূচি। আর এই 'দুয়ারে সরকার' কর্মসূচির আদলেই এবার তৃণমূল কংগ্রেস নিয়েছে 'দুয়ারে তৃণমূল কংগ্রেস' কর্মসূচি।  এই কর্মসূচিতে দলের সব সদস্যকে'পূর্ণ উদ্যমের সাথে অংশগ্রহণ করতে নির্দেশিকা বা বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সির জারি করা এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, "পার্টির নেতৃত্ব ও কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার, জনসংযোগ, মিছিল, সাধারণ সভা, প্রভাবশালী ব্যক্তিদের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন ইত্যাদি করতে হবে।" এই সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের আমলে হওয়া উন্নয়ন এবং প্রগতি তুলে ধরতে হবে।

 

সুব্রত বক্সির জারি করা এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে যে, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে আজ, বৃহস্পতিবার থেকেই দলের কর্মীদের এই প্রচার অভিযান ও জনসংযোগ স্থাপন করার কাজ শুরু করে দিতে হবে এবং কর্মীদের যে কর্মসূচি দেওয়া হচ্ছে তা ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে শেষ করতে হবে। এই কর্মসূচি যাতে সব মানুষের মধ্যে এবং 'দিকে দিকে সাড়া ফেলতে পারে' তার জন্য দলের সব সদস্যকে পূর্ণ উদ্যমের সাথে অংশ নিতে হবে। ইতিমধ্যেই ফোনেও মানুষকে তৃণমূল সরকারের কথা বলা হচ্ছে। তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থায় ওই ফোন করা হচ্ছে। এবং রেকর্ডিং শোনানো হচ্ছে। তাতে তুলে ধরা হয়েছে সরকারের সাফল্য।

তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা কর্মীদের দাবি, বিজেপি যাই বলুক না কেন বাংলার মানুষ আছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এবং রাজ্য সরকারের আমলে হওয়া উন্নয়নের পাশেই। যে জনসংযোগ কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে তাতে সব মানুষের কাছে আমরা পৌঁছাবো এবং এর ফলে মানুষ আরও বেশি করে আমাদের দলনেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে থাকবেন।

 

বুধবারই রাজ্যে এসে পৌঁছেছে নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ।  আজ, তাঁরা বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও  জেলাশাসক এবং পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক করছেন।  আগামী মাসেই এই রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের বিজ্ঞপ্তি জারি করে দেওয়া হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

 

নির্বাচনের  নির্ঘণ্ট ঘোষণা করার আগেই, বিজেপির মোকাবিলা করার জন্য, জনসংযোগে জোর দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। যদিও বিজেপি নেতাদের দাবি, এই সব করে কোনও লাভ হবে না তৃণমূল কংগ্রেসের। কারণ মানুষ মনস্থির করে ফেলেছে। এই বার তৃণমূল কংগ্রেসকে ক্ষমতাচ্যুত করবে মানুষ।

Mailing List