এবার পুজোয় মেদিনীপুরের মানুষ ছানার মিষ্টি থেকেই বঞ্চিত হতে চলেছে, কিন্তু কেন?

এবার পুজোয় মেদিনীপুরের মানুষ ছানার মিষ্টি থেকেই বঞ্চিত হতে চলেছে, কিন্তু কেন?
27 Sep 2022, 06:06 PM

এবার পুজোয় মেদিনীপুরের মানুষ ছানার মিষ্টি থেকেই বঞ্চিত হতে চলেছে, কিন্তু কেন?

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: এবার পুজোর সময় ছানার মিষ্টি দই থেকে বাদ পড়তে চলেছে মেদিনীপুর। কেননা ছানার দাম অবৈধভাবে দ্বিগুণ করতে চাইছেন ছানা ব্যবসায়ীরা। আর তাতেই ছানার মিষ্টি তৈরি থেকে বিরত থাকতে চাইছেন মেদিনীপুরের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী। ফলে মেদিনীপুরের মানুষ ছানার মিষ্টি থেকে বঞ্চিত হতে চলেছে।

যদিও ঘটনা ক্রমে বলা যায় মেদিনীপুরে অন্যান্য জায়গা থেকে তুলনামূলক স্বাদে এবং গন্ধে সুস্বাদু মিষ্টি পাওয়া যায়। সেই মিষ্টির দাম পাঁচ টাকা থেকে ১২ এবং ১৫ টাকার ভেতরেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। যেখানে জঙ্গলমহল অধ্যুষিতই মেদিনীপুরের খেটে খাওয়া গরিব মানুষেরাও এই ছানার মিষ্টি এবং ছানার সঙ্গে দই সংগ্রহ করতে পারেন। কিন্তু সম্প্রতি মেদিনীপুরের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ীদেরকে দেওয়া ছানার ব্যবসায়ীরা ছানার দাম সঙ্গে দুধের দাম বাড়াতে চলেছেন প্রায় দ্বিগুণ আর তাতে ক্ষোভের সঞ্চয় ব্যবসায়ীদের মধ্যে।কারণ তারা ছানার দাম ইতিমধ্যে কেজিতে ১৮২ টাকার পরিবর্তে দাবী করেছেন ২৬০ টাকার সেখানে দুধের দাম ৪৯ টাকা থেকে বাড়াতে চেয়েছেন ৬৫ টাকাতে। আর তাতেই বেঁকে বসেন মেদিনীপুরের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ীরা। কারণ একেই জিনিসপত্রের দাম আগুন সেখানে যতটা পরিমাণে কম করা যায় সেই পরিমাণের দাম নির্ধারণ করেই তারা মিষ্টি ইতিমধ্যে ক্রেতাদের দিয়ে চলেছেন। কিন্তু এইভাবে যদি দ্বিগুণ হারের দাম বাড়িয়ে দেওয়া হয় সেক্ষেত্রে পাঁচ টাকার মিষ্টি গিয়ে থামবে ১৫ টাকা অথবা কুড়ি টাকাতে।

তাতেও হয়তো আর ছানার মিষ্টি দেওয়া যাবে না জঙ্গলমহলের মানুষকে। আর তাতেই পুজোর সময় সমস্যায় পড়তে পড়বে সাধারণ মানুষজন। কারণ সামনে বাংলা আর বাঙালির শ্রেষ্ঠ উত্‍সব দুর্গাপূজা এবং দুর্গাপুজোর হাত ধরেই লক্ষ্মী, জগধাত্রী এবং শেষ পর্যন্ত সরস্বতী পুজোতে শেষ হবে পুজোর মরশুম। আর প্রতি পুজোতেই মিষ্টি এক অপরিহার্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়।কিন্তু বর্তমানে মেদিনীপুরের এই মিষ্টি দোকান থেকে উধাও হতে যেতে বসেছে এই ছানার মিষ্টি দই, রসগোল্লা, রাজভোগ, পান্তুয়া, চমচম, রসমালাই সঙ্গে দই। ব্যবসায়ীদের দাবি অনেকবারই তারা বসার চেষ্টা করেছেন ছানা ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কিন্তু তারা তাদের দাবিতে অনড় রয়েছেন ইতিমধ্যে।যার ফলে সমস্যায় ভুগতে হচ্ছে তাদের।

ব্যবসায়ীদের বক্তব্য, গত ২১ সালের নভেম্বর মাসে ছানার দাম বাড়ানো হয়েছে প্রায় চার টাকারও বেশি। কিন্তু তারপর আবার ২০২২-শে এই সেপ্টেম্বর মাসেই দাম বাড়ানো কোনো পক্ষেই সম্ভব নয়। তাই আমরা মিষ্টির ছানার মিষ্টির বদলে বেসন, ময়দা ও গুড়ের মিষ্টি বিক্রি করছি। যাতে লস যেমন হচ্ছে তার সঙ্গে ক্রেতাদের ক্ষোভ বাড়ছে। 

Mailing List