২৫ ধরণের লুপ্ত হয়ে যাওয়া ধানের চাষ ফিরিয়ে আনছে রাজ্য, যার সূচনা হবে কবিরাজ শাল এবং দানাগুড়ি দিয়ে

২৫ ধরণের লুপ্ত হয়ে যাওয়া ধানের চাষ ফিরিয়ে আনছে রাজ্য, যার সূচনা হবে কবিরাজ শাল এবং দানাগুড়ি দিয়ে
26 Oct 2022, 06:00 PM

২৫ ধরণের লুপ্ত হয়ে যাওয়া ধানের চাষ ফিরিয়ে আনছে রাজ্য, যার সূচনা হবে কবিরাজ শাল এবং দানাগুড়ি দিয়ে

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: রাজ্যের কৃষি দফতর আরও ২৫ ধরণের লুপ্ত হয়ে যাওয়া ধান চাষের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রাথমিক ভাবে একদা মেদিনীপুরের জনপ্রিয় কবিরাজ শাল এবং বাঁকুড়ার দানাগুড়ি ধানের চাষ শুরু করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ ২৪ পরগণার বাসন্তিতে ৮০০ বিঘা জমিতে এই দুই প্রজাতির ধান চাষ করা হবে বলে কৃষি দফতর সূত্রে জানা গেছে।

রাজ্য সরকার সুস্বাদু ও পুষ্টিগুণ সম্পন্ন এবং অধুনা লুপ্ত বিভিন্ন প্রজাতির ধান চাষের প্রচল ফিরিয়ে আনতে উদ্যোগী হয়েছে। রাজ্য জীব বৈচিত্র পর্ষদের মাধ্যমে বিভিন্ন জেবলার কৃষকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ২৫০ প্রজাতির লুপ্ত ধান বীজ সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে চাষের উপযোগী ও লাভজনক ২৫০টি প্রজাতিকে চিহ্নিত করা হয়েছে। বীরভূমের বোলপুর, বাঁকুড়ার হীরাবাঁধ, দক্ষিণ ২৪ পরগণার জয়গোপালপুর এবং কূলতলী এলাকায় এই ধানের বীজের ভাণ্ডার বা ল্যান্ডব্যাঙ্ক তৈরি করা হয়েছে বলে জীব বৈচিত্র পর্ষদের সভাপতি ডঃ হিমাদ্রী শেখর দেবনাথ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বাংলায় একসময় প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার স্থানীয় প্রজাতির ধানের চাষ হত। এখন সেগুলি বিলুপ্ত হয়ে গেছে। কৃষকদের উত্সাহ এবং যথাযথ প্রশিক্ষনের মাধ্যমে এইসব ধানের প্রজাতি ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরাও এব্যপারে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। ধান চাষে জৈব সার ব্যবহার করা হচ্ছে।যাতে চাষের খরচ এক পঞ্চমাংশ কম গিয়েছে বলেও তাঁর দাবি।

Mailing List