কোকেনকাণ্ডে ধৃত রাকেশ সিংকে পুলিশি হেফাজতে পাঠাল আদালত

কোকেনকাণ্ডে ধৃত রাকেশ সিংকে পুলিশি হেফাজতে পাঠাল আদালত
24 Feb 2021, 09:42 PM

কোকেনকাণ্ডে ধৃত রাকেশ সিংকে পুলিশি হেফাজতে পাঠাল আদালত

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদনঃ কোকেন-কাণ্ডে ধৃত বিজেপি নেতা রাকেশ সিংকে ১ মার্চ পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে পাঠাল আলিপুর আদালত।  গতকাল তাঁকে পূর্ব বর্ধমান জেলার গলসি এলাকা থেকে গ্রেফতার করার পরে আজ তাঁকে তোলা হয় আদালাতে।  নার্কোটিক্স সেলের গোয়েন্দারা তাঁকে হেফাজতে নিতে চেয়ে আবেদন করলে আদালত আবেদন মঞ্জুর করে।

মাদক-সহ ধৃত বিজেপি নেত্রী পামেলা গোস্বামী অভিযোগ করেছিলেন, রাকেশ সিংয়ের মাধ্যমেই হত মাদক পাচার। বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে তিনি ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলেছিলেন। সেই মতো গোয়েন্দারা এই দুজনকে মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করতে পারেন বলেও জানা গিয়েছে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের সূত্রে।

  ।

বুধবার দুপুরে মাদক-কাণ্ডে ধৃত রাকেশকে আদালতে নিয়ে আসার সময় ধুন্ধুমার পরিস্থিতি তৈরি হয়। পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক ধস্তাধস্তি হয় রাকেশের অনুগামীদের। আদালত চত্বরে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি করেন তাঁরা, এমনটাই অভিযোগ পুলিশের। তাঁদের সামলাতে হিমশিম খায় পুলিশ। প্রিজন ভ্যান থেকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যেতে হয় রাকেশকে। এজলাসে নিয়ে যাওয়ার সময় হুড়োহুড়িতে মাটিতে পড়েও যান রাকেশ। অন্যদিকে, আদালত চত্বরে পুলিশের বিরুদ্ধে দাদাগিরি করার অভিযোগ তুলেছেন রাকেশ সিং।

রাকেশ সিং- কে ১ মার্চ পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে পাঠানো হলেও অন্তর্বর্তীকালীন জামিন পেয়েছেন তাঁর দুই ছেলে। তাঁদের বিরুদ্ধে পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ ওঠে।  তাদের জামিন দেওয়া হলেও তদন্তকারী আধিকারিকের কাছে প্রতিদিন হাজিরা দিতে হবে বলেও নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এদিন আদালতে রাকেশের আইনজীবী পুলিশের বিরুদ্ধে তাঁর মক্কেলকে মারধরের অভিযোগ তোলেন। নির্বাচনের মুখে তাঁর চক্রান্ত করা হচ্ছে বলে সরব হন। যেহেতু তিনি কলকাতায় বিজেপির গুরুত্বপূর্ণ নেতা, তাই তাঁকে ফাঁসানো হচ্ছে বলে অভিযোগ।

এই এদিকে বিজেপি নেতা রাকেশ সিং-এর গ্রেফতারি নিয়ে ভিন্ন সুর শোনা গিয়েছে বিজেপি নেতাদের কথায়। এই গ্রেফতারি প্রতিহিংসা পরায়ণ কিনা,  এই প্রসঙ্গে এদিন বিজেপি নেত্রী তথা সাংসদ রূপা  গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, “ রাকেশ সিংকে আমি চিনি না।  আমি সিপিএম, কংগ্রেস, বিজেপিও  বুঝি না। যেখানে পুলিশ অন্যায় দেখবে সেখানেই গ্রেফতার করবে। পুলিশ যা করেছে ঠিক করেছে।“

তবে রাকেশ সিংকে নিয়ে প্রতিহিংসা পরায়ণ রাজনীতির অভিযোগ তুলেছেন  বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।  তিনি বলেন, “এই গ্রেফতারিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কতটা প্রতিহিংসা পরায়ণ তা বোধা গেল। দুটো বাচ্চা ছেলেকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গেল। রাকেশ সিংকে কোন মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে তা কেউ জানে না। এখনও সে দোষী প্রমাণিত হয় নি।“ এই সাথে তিনি বলেন, “ যদি কেউ নিয়ম ভাঙে দল তাঁর পিছনে দাঁড়াবে না। তদন্তে সত্যিটা সামনে আসুক।“

গত কাল রাকেশ সিং-এর বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে তাঁকে পাওয়া যায় নি। তিনি রাজ্য ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ পুলিশের। মঙ্গলবার বর্ধমানের গলসি থেকে রাকেশ এবং তাঁর এক সঙ্গী জিতেন্দ্র কুমার সিংকে গ্রেফতার করা হয়। ভোররাতে তাঁদের লালবাজারে নিয়ে আসা হয়। তারপর দুপুরের দিকে বিজেপি নেতাকে আলিপুর আদালতে পেশ করে পুলিশ।

কলকাতা পুলিশের দাবি, জেরায় পামেলা গোস্বামী জানিয়েছেন যে তাঁকে মাদক সরবরাহ করতেন  রাকেশ। পামেলার তথ্যের ভিত্তিতে রাকেশকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে পামেলা এবং রাকেশের মধ্যে একজন লিঙ্কম্যান ছিলেন বলে অনুমান করা হচ্ছে। পুরো কোকেনকাণ্ডে আরও কয়েকজন জড়িত থাকতে পারেন বলেও  মনে করছে পুলিশ। তাই তাঁদের দুজনকে একসাথে বসিয়ে জেরা করা হতে পারে বলেও জানা গিয়েছে।

 

Mailing List