ঠাকুর ও মা স্বয়ং ভবতারিণীর সাক্ষাৎ পেয়েছিলেন

ঠাকুর ও মা স্বয়ং ভবতারিণীর সাক্ষাৎ পেয়েছিলেন
14 Mar 2021, 08:30 PM

ঠাকুর ও মা স্বয়ং ভবতারিণীর সাক্ষাৎ পেয়েছিলেন

 

সুদর্শন নন্দী

 

সর্বধর্ম সমন্বয়ের কারিগর ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ ও মা সারদাদেবী উনবিংশ শতাব্দীর এক পরম বিস্ময়| ধর্মের এক নতুন ব্যাখা শুনল জগৎ| যে ব্যাখ্যায় ধর্ম নিয়ে কোন বিভেদ নেই, জীব সেবাই শেষ কথা, ভোগ নয় প্রয়োজন ত্যাগ, আর ঈশ্বর লাভই মানুষের উদ্দেশ্য| মা ভবতারিণী তথা মা কালীর সাথে তার ছিল ওঠাবসা| ঝামাপুকুর থেকে দাদার সাথে দক্ষিনেশ্বর যিনি আসতে চাননি সেই দক্ষিনেশ্বরই পরবর্তীকালে হয়ে উঠল তার লীলাক্ষেত্র|

ধর্মের নবজাগরণ দেখল বিশ্ব এই পুণ্যতীর্থ থেকেই| বিভিন্ন ঘটনা ও বর্ণনা থেকে দেখি যে তিনি ও মা সারদাদেবী মাকালীর সাক্ষাৎ পেয়েছিলেন প্রত্যক্ষভাবে| প্রসঙ্গত জানাই ঠাকুরের প্রিয় শিষ্য তথা কর্মযোগী সন্ন্যাসী স্বামী বিবেকানন্দ দক্ষিনেশ্বরে প্রথম দিকে ঠাকুরকে একবার জিজ্ঞাসা করেছিলেন – আপনিকি  ঈশ্বর দর্শন করেছেন০ ঠাকুর তাৎক্ষণিক উত্তর দেন-হ্যা দেখেছি, এই তোকে যেমন দেখছি| অপার বিস্ময়ে অভিভূত হয়ে যান নরেন|

 

ঠিক তেমনই একবার গোবিন্দমূর্তির হাত ভেঙ্গে যাবার পর বিভ্রান্ত রানী রাসমনি যখন ঠাকুরকে জিজ্ঞাসা করলেন নতুন মূর্তি গড়াবেন কিনা তখন ঠাকুর জিজ্ঞাসা করলেন রাসমনিকে যে তার জামাইয়ের হাত ভাঙলে নতুন জামাই আনতেন কিনা| এই এক উত্তরই জানিয়ে দিল ঠাকুর শ্রীরামকৃষ্ণ-দৃষ্টিতে ঈশ্বর-ধারণা| ঠাকুর মায়ের পূজা করতে করতে কখনো কাঁদেন, কখনো হাসেন, কখনো কথা বলেন, কখনো নিজের হাতে মাকে খাইয়ে দেন| ঠিক একজন মানুষ যেমন আরেকজন রক্ত মাংসের মানুষকে করেন| কখনো ঘন্টার পর ঘন্টা ধ্যান করেন, নিজের মাথায় ফুল দেন| আবার সহধর্মিনী মা সারদাকেও তিনি পুজো করেছিলেন| ঠাকুরে দৃষ্টিতে ও জীবনদর্শনে মা সারদা আর মা ভবতারিণী ছিলেন অভিন্ন| তিনি অনেকবার কালিঘাট ও ঠনঠনিয়া কালীবাড়িতে গেছেন এবং বলাবাহুল্য মাকে দেখে বিহ্বল হয়ে পড়েছেন|

 

কেশব, অধরলাল প্রমুখ ভক্তদের আরোগ্য ও মঙ্গল কামনার্থে কালীঘাটে ডাব চিনি মানতও করেছিলেন ঠাকুর| একবার তিনি মাকে সাক্ষাৎ করেন কালীঘাটে| পুকুর পাড়ে কচুবনে মাকে লালপেড়ে শাড়ি পরে অনেকের সাথে ফড়িং ধরতে দেখেন তিনি| আবার সেই মাকে দেখতে পান কালিঘাটেই, লালপেড়ে শাড়ি পরিহিত| অবস্থায়| ঠাকুরের সহধর্মিনী জগজ্জননী মা সারদাদেবীও মা কালীর সাক্ষাৎ পান একবার| কালীঘাটে কালীদর্শনে গিয়ে তিনি বাইরে এক সধবা মহিলার ঘোমটা টেনে সিন্দুর পরিয়েছিলেন| তারপর সেই সধবা যখন ঘোমটা তুললেন তখন মা দেখলেন মা কালীর তৃতীয় নয়ন| শিহরিত হয়ে যান সারদাদেবী| কিন্তু পরক্ষনেই দেখলেন বৌটি নেই| শ্রী রামকৃষ্ণ ও মা সারদাদেবী শ্যামামায়ের প্রত্যক্ষ এ সাক্ষাৎ বুঝিয়ে দেয় ঈশ্বরের সাথে এই অবতারদের অভিন্নতা|

                                  *********

Mailing List