বেল ফুলের চাষে দেখুন লাভের মুখ

বেল ফুলের চাষে দেখুন লাভের মুখ
22 Apr 2022, 10:06 AM

বেল ফুলের চাষে দেখুন লাভের মুখ

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন : যেকোনো ধরণের অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে পুজো - অতি সহজেই যে ফুলটির দেখা মেলে তা হলো বেল ফুল। ছোট্ট সাদা রঙের এই ফলটি কিন্তু বিখ্যাত তার মিষ্টি আকর্ষণময় সুবাস এর জন্য। তাছাড়া আমাদের দেশের অনেক অংশেই এটিকে মহিলাদের সাজ শৃঙ্গারের অংশ হিসাবে দেখা যায়। তাই খুব সহজেই বলা চলে যে বেল ফুলের চাষ যদি সঠিক উপায়ে করা যেতে পারে তাহলে এটি আপনার জন্য বেশ লাভজনক হয়ে উঠতে পারে।

 

আমাদের দেশে সাধারণত তিন ধরনের বেল ফুল দেখা যায়। যথা, এক সিঙ্গল ধরনের ও অধিক গন্ধযুক্ত ফুল, দুই মাঝারি আকার ও ডবল ধরনের, তিন বৃহদাকার ডবল ধরনের।

 

বেল ফুল সাধারণত গুটি কলম, দাবা কলম ও ডাল কলম পদ্ধতির মাধ্যমে বংশবিস্তার করে থাকে। এই ফুল চাষের আগে খেয়াল রাখতে হবে চাষের মাটি যেন এঁটেল মাটি এবং বেলে মাটি না হয়। এই দুই ধরণের মাটি ব্যতীত সব ধরনের মাটিতে বেলি ফুল চাষ করা যায়।

 

বেল ফুল জলাবদ্ধতা সহ্য করতে পারে না। তাই খেয়াল রাখতে হবে জল সেচ ও  নিকাশের ব্যবস্থা যেন উপযুক্ত হয়। এক্ষেত্রে জমি ৪ থেকে ৫টি চাষ ও মই দিয়ে মাটি ঝুরঝুরে ও সমান করে নিতে হবে।

 

জমি তৈরির সময় জৈব সার, ইউরিয়া, ফসফেট এবং এমপি নির্দিষ্ট মাত্রায় প্রয়োগ করতে হবে। চারা রোপনের সময় দুটি চারার মধ্যে প্রায় ১ মিটার অন্তর রাখতে হবে। চারা রোপনের পর ইউরিয়া প্রয়োগ করে সেচ দিতে হবে।

 

এই ফুল চাষের উপযুক্ত সময় হলো গ্রীষ্মের শেষ থেকে বর্ষার শেষ পর্যন্ত। আর এই সময়েই বেল ফুলের কলম বা চারা তৈরি করা যায়। চারা থেকে চারা ও সারি থেকে সারির দূরত্ব ৫০ সেমি. হতে হবে। বর্ষায় বা বর্ষার শেষের দিকে কলম বসানোই ভালো। তবে সেচের ব্যবস্থা ভালো হলে বসন্তকালেও কলম তৈরি করা যায়।

 

খেয়াল রাখবেন এই ফুল যেমন অতিরিক্ত জলাবদ্ধতা সহ্য করতে পারে না ঠিক তেমনই অতিরিক্ত শুস্কতাও বেল ফুলের জন্য খুব ক্ষতিকর। তাই বেল ফুলের চাষ জমিতে সবসময় রস থাকা দরকার। গ্রীষ্মকালে ১০-১২ দিন পরপর শীতকালে ১৫-২০ দিন পর পর এবং বর্ষাকালে বৃষ্টি সময়মতো না হলে জমির অবস্থা বুঝে ২-১ টি সেচ দেওয়া দরকার।

 

জমি থেকে নিয়মিত আগাছা পরিষ্কার করতে হবে। এক্ষেত্রে একটি কাজ করতে পারেন তা হলো খড় কেটে জমিতে বিছিয়ে রাখলে সেচের প্রয়োজন কম হয় এবং আগাছাও বেশি জন্মাতে পারে না।

 

প্রতিবছরই  গাছের ডাল-পালা ছাঁটাই করা দরকার। বিশেষ করে শীতের মাঝামাঝি সময় ডাল ছাঁটাই করতে হবে। মাটির উপরের স্তর থেকে ৩০ সেমি. উপরে বেল ফুলের গাছ ছাঁটাই করতে হবে। অঙ্গ ছাঁটাইয়ের কয়েকদিন পর জমিতে সার প্রয়োগ করতে হবে।

 

এই ফুল গাছে যদিও তেমন ক্ষতিকারক পোকা দেখা যায় না। তবে মাকড়ের আক্রমণ হতে পারে। এদের আক্রমণে পাতায় সাদা আস্তরণ পড়ে, আক্রান্ত পাতাগুলো কুঁকড়ে যায় ও গোল হয়ে পাকিয়ে যায়। এক্ষেত্রে গন্ধক গুঁড়া বা গন্ধক ঘটিত  ঔষধ যেমন- সালট্যাফ, কেলথেন ইত্যাদি পাতায় ছিটিয়ে মাকড় দমন করা যায়।

 

বেলি ফুলের পাতায় হলদে বর্ণের ছিটে ছিটে দাগযুক্ত এক প্রকার ছত্রাক রোগ দেখা যায়। এগ্রোসান বা ট্রেসেল-২ প্রয়োগ করে এ রোগ দমন করা যায়।

 

ফেব্রুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত গাছে ফুল ফোটে। ফলন প্রতি বছরই বাড়তে থাকে। তবে লতানো বেলিতে ফলন আরও বেশি হয়।

Mailing List