সোনা দোকানে ডাকাতি, ৪৮ ঘন্টার মধ্যে কিনারা

15 Jun 2021, 07:45 PM

সোনা দোকানে ডাকাতি, ৪৮ ঘন্টার মধ্যে কিনারা

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: ঘটনার ৪৮ ঘন্টার মধ্যেই সিসিটিভি ফুটেজ দেখেই গাড়ি শনাক্ত করে সোনার দোকানের বড়সড় ডাকাতির কিনারা করলো বাঁকুড়া পুলিশ। গত ১১জুন প্রাকাশ্য দিবালোকে বাঁকুড়া শহরের কাঠজুড়িডাঙা এলাকায় একটি সোনার দোকানে বড়সড় ডাকাতির ঘটনা ঘটে।  দোকানে থাকা প্রচুর পরিমান সোনার গহনা এবং নগদ টাকা লুঠ করে দুষ্কৃতকারীরা। লুটপাট চালিয়ে চম্পট দেওয়ার সময় দোকানে থাকা সিসিটিভি হার্ডডিস্ক নষ্ট করে দেয় ওই দুষ্কৃতকারীর দল। ঘটনার তদন্তে নামে বাঁকুড়া সদর থানার পুলিশ। দিনে দুপুরে দুঃসাহসিক ডাকাতির ঘটনায় আতঙ্ক ছড়ায়। ঘটনার তদন্ত শুরু করে বাঁকুড়া জেলার পুলিশ।

 

প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান আনসারের একটি ছোট গাড়ি করে ক্রেতা সেজে দোকানে ঢোকে ওই দুষ্কৃতিরা। সেই গাড়িটিকে শনাক্ত করার কাজ শুরু করে পুলিশ। আশেপাশের দোকানে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ঘটনার সময় ধরে শুরু হয় গাড়ি শনাক্তকরনের কাজ। এই সুত্র ধরে সাধারন মানুষ কে জিজ্ঞাসাবাদ করে গাড়িটিরফ গতিপথ খতিয়ে দেখে পুলিশ। পুলিশের চোখ এড়াতে শহরের  ব্যাস্ততম রাস্তা ছেড়ে দুষ্কৃতকারীরা অন্য রাস্তা ধরেছিল বলেই তদন্তে জানতে পারে পুলিশ। প্রথমে পুলিশ গাড়ি শনাক্ত ও গাড়ির চালকের হাত ধরে  দুষ্কৃতকারী এবং ঘটনার মাস্টার মাইন্ড পর্যন্ত পৌঁছানোর চেষ্টা করে। লুটপাটের ব্যবহৃত গাড়ির ড্রাইভারের হাত ধরেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সাতজন দুষ্কৃতকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বাঁকুড়া জেলা থেকেই ঘটনার মুল মাস্টার মাইন্ড গঙ্গাজলঘাটি থানা এলাকার বাসিন্দা বাবু গরাই নামে এক ব্যক্তিকে গ্রফতার করা হয় বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার ধৃতিমান সরকার। তার কথায় ওই ব্যক্তি গ্রেফতার হওয়ার পর বাঁকুড়া থেকে আরও দুজন, মুর্শিদাবাদ থেকে ৩ জন এবং ঝাড়খন্ড থেকে ১ জনকে গ্রেফতার সহ ৭ জনকে গ্রেফতার করা হয় ওই ডাকাতির ঘটনায়। উদ্ধার হয় চুরি যাওয়া সোনা ও রূপার গহনা।  পুলিশ সুপার ধৃতিমান সরকার জানিয়েছেন  চুরি যাওয়া ৪৭৫ গ্রাম সোনা প্রায় ১ কেজি রূপা এবং নগদ টাকা উদ্ধার হয়েছে।  উদ্ধার হয়েছে দুষ্কৃতীদের ব্যবহার করা পিস্তল,  মোবাইল ও অনান্য সামগ্রী। ঘটনার পর থেকেই বিশেষ টিম গঠন করে তদন্তে এই সফলতা এসেছে বলেই দাবি পুলিশের।  পুলিশ জানিয়েছে দুষ্কৃতিকারী দলটি এই ধরনের ক্রাইম করত এবং ভিন রাজ্যে সেগুলি বিক্রি করতো। মঙ্গলবার সাংবাদিক সম্মেলন করে নিজেদের সাফল্য ও এই ডক্টর ঘটনা করতে পুলিশের তদন্তের কথা এদিন বিস্তারিত  জানিয়েছেন বাঁকুড়া জেলার পুলিশ  সুপার। তিনি আরও জানিয়েছেন এই ঘটনায় ডাকাতি করতে এসে একটি নাইন এম  এম পিস্তল ও একটা ছুরি উদ্ধার হয়েছে।

 

 

Mailing List