পুরুলিয়ায় স্পঞ্জ আয়রন কারখানায় ফের দুর্ঘটনায় শ্রমিকের মৃত্যু, ক্ষতিপূরণের দাবিতে বিক্ষোভ 

পুরুলিয়ায় স্পঞ্জ আয়রন কারখানায় ফের দুর্ঘটনায় শ্রমিকের মৃত্যু, ক্ষতিপূরণের দাবিতে বিক্ষোভ 
28 Dec 2020, 05:58 PM

পুরুলিয়ায় স্পঞ্জ আয়রন কারখানায় ফের দুর্ঘটনায় শ্রমিকের মৃত্যু, ক্ষতিপূরণের দাবিতে বিক্ষোভ 

 

আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়

 

ফের একটি স্পঞ্জ আয়রন কারখানায় কাজ করার সময় দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল এক শ্রমিকের। মৃত ওই শ্রমিকের নাম দীপক ওরফে হেমু ঘোষাল। ঘটনাটি ঘটেছে পুরুলিয়ার পাড়া থানার মহুদা গ্রামে অবস্থিত ব্রেভো স্পঞ্জ আয়রন প্রাইভেট লিমিটেডের কারখানাতে। মৃত ওই শ্রমিকের বাড়ি রুকনি গ্রামে। জানা যায়, অন্যান্য দিনের মতো রবিবার রাতে ওই শ্রমিক কারখানার ভিতরে কাজ করছিলেন। সেই সময় কারখানার ভিতরে একটি ডাম্পার মাল খালি করার জন্য সাইডিং করার সময়  তাঁকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর।

এই খবর সোমবার সকালে এলাকায় ছড়িয়ে পড়তেই মৃত ওই শ্রমিকের পরিবারের আত্মীয়রা সহ গ্রামবাসীরা ও অন্যান্য শ্রমিকরা পুলিশকে মৃতদেহ তুলতে না দিয়ে ওই কারখানার মধ্যেই মৃতদেহ ফেলে রেখে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের দাবিতে বিক্ষোভ দেখায় মৃতের পরিবারের আত্মীয়-সহ অন্যান্য শ্রমিকরা। এরপরই দফায় দফায় কারখানা কতৃপক্ষ মৃতের পরিবারের আত্মীয় ও অন্যান্য আন্দোলনকারীদের নিয়ে আলোচনা করে।

এদিকে এই কারখানায় এই ঘটনার আগেও দুর্ঘটনায় একাধিকবার শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটলেও কারখানা কতৃপক্ষ দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য কোনও পদক্ষেপ না নেওয়ায় এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে ব্যাপক ক্ষোভ। দুর্ঘটনা ঘটার পাশাপাশি এই স্পঞ্জ আয়রন কারখানার  দূষণে জীবন দুর্বিসহ হয়ে উঠায় একাধিকবার প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা। পুকুরের জল দুষিত হওয়ায় তা যেমন ব্যবহার করা যাচ্ছে না, তেমনি  দেখা দিচ্ছে নানা রোগ। এমনকি চাষের জমি কালিতে ঢেকে যাওয়ায় চাষবাদও শিকেয় উঠেছে। যার জেরে এলাকার চাষিরা ক্ষোভে ফুঁসছেন। 

পুরুলিয়ার স্পঞ্জ আয়রন কারখানার থেকে দূষণ নতুন বিষয় নয়। পুরুলিয়ার পাড়া ব্লকের মহুলা গ্রামে অবস্থিত স্পঞ্জ আয়রন কারখানা ছাড়া  নিতুড়িয়া ব্লকের গড়পঞ্চকোট পাহাড় লাগোয়া  সাঁকাম্বরী স্পঞ্জের অবাধ দূষণে জেরবার এলাকার বাসিন্দারা। নামে মাত্র বসানো রয়েছে দূষণ নিয়ন্ত্রণ করার মেশিন ই এস পি যন্ত্র। যন্ত্র থাকলেও সেই যন্ত্র চালানো হয় না অত্যধিক খরচ সাপেক্ষ হওয়ার কারণে। তোলার ভারে দেখেও দেখে না পুলিশ ও জনদরদী নেতারা। নীরব থাকে দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ। অথচ পাড়া থানা এলাকার মহুদা গ্রামে অবস্থিত ব্রেভো স্পঞ্জ আয়রন কারখানার  চিমনির কালো ধোঁয়ায় দূষণ যেভাবে ছড়িয়েছে তাতে বসবাসের অযোগ্য হয়ে উঠেছে এলাকার গ্রামগুলোর বাসিন্দাদের।

এলাকার বিধায়ক উমাপদ বাউরি বলেছেন, কারখানা কর্তৃপক্ষ মৃতের পরিবারকে চাকরি এবং ক্ষতিপূরণ দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে।

Mailing List