মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে পকোড়ি ছেড়ে হাঁটা শুরু করলেন পুরুলিয়ার ঝালদা পুরসভার ১২৫ কেজির পুরপ্রধান সুরেশ আগরওয়ালা

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে পকোড়ি ছেড়ে হাঁটা শুরু করলেন পুরুলিয়ার ঝালদা পুরসভার ১২৫ কেজির পুরপ্রধান সুরেশ আগরওয়ালা
07 Jun 2022, 07:30 PM

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে পকোড়ি ছেড়ে হাঁটা শুরু করলেন পুরুলিয়ার ঝালদা পুরসভার ১২৫ কেজির পুরপ্রধান সুরেশ আগরওয়ালা

 

আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, পুরুলিয়া

 

দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তথা দিদির আদেশ মানলেন পুরুলিয়ার ঝালদা পুরসভার চেয়ারম্যান সুরেশ আগরওয়ালা।  যা পারেনি করাতে পরিবারের আত্মীয় থেকে অন্যরা, তার সেই দীর্ঘদিনের অভ্যাস ছেড়ে দিলেন কেবলমাত্র দিদির অর্থাৎ দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে। পকোড়ি খাওয়া ছাড়লেন তিনি। শুরু করলেন হাঁটা এবং নিয়ম মেনে প্রাণায়াম করা।

পুরুলিয়ায় প্রশাসনিক বৈঠক থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও ঝালদা পুরসভার চেয়ারম্যানের কথোপকথনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঝালদা পুরসভার চেয়ারম্যানের ভুঁড়ি দেখে কার্যত অবাক হয়ে যান। চেয়ারম্যানকে জিগ্যেস করে বসেন, এত বড় মধ্যপ্রদেশ কি করে হল? কি খান? ব্যায়াম করেন কি না? হাঁটেন কি না?

চেয়ারম্যান নিজেই তখন জানিয়েছিলেন তাঁর ওজন ১২৫ কেজি। তাঁদের দেখেই চেয়ার বানানো হয়। চেয়ার ভাঙবে কি না? সেই ঝালদা পুরসভার চেয়ারম্যান সুরেশ আগরওয়ালা জানিয়েছিলেন, তিনি ছোট বেলা থেকেই সকালে উঠে পকোড়ি খান। এরপরই মুখ্যমন্ত্রী তাঁকে এই অভ্যাস ত্যাগ করতে ও প্রাণায়াম করতে বলেন। হাঁটতে বলেন। পুরুলিয়ার প্রশাসনিক বৈঠক থেকেই চেয়ারম্যান সুরেশ আগরওয়ালাকে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার পাশাপাশি শরীরচর্চার মাধ্যমে ভুঁড়ি কমানোর টিপসও দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সেদিন চেয়ারম্যানও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে কথা দিয়েছিলেন, তিনি পকোড়ি খাওয়া ছেড়ে দেবেন। যেমন কথা তেমন কাজ। সেই মতো ছেলেবেলা থেকে পকোড়ি খাওয়ার অভ্যাস তো ছাড়লেনই, পাশাপাশি ভুঁড়ি কমাতে রীতিমতো হাঁটা ও প্রাণায়ামও শুরু করেলেন পুরুলিয়ার ঝালদা পুরসভার চেয়ারম্যান সুরেশ আগরওয়াল। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী যখন আদেশ দিয়েছেন, তখন তা তিনি পালন করবেনই। তাই দীর্ঘদিনের পকোড়ি খাওয়ার অভ্যাস ছেড়ে দিলেন।

Mailing List