কেরালার অতি জনপ্রিয় মাছ ‘ক্যারিমীন’ মাছ চাষের অভিনব উদ্যোগ গ্রহন নন্দীগ্রাম-১ ব্লকের মৎস্য বিভাগের

কেরালার অতি জনপ্রিয় মাছ ‘ক্যারিমীন’ মাছ চাষের অভিনব উদ্যোগ গ্রহন নন্দীগ্রাম-১ ব্লকের মৎস্য বিভাগের
10 Sep 2022, 10:10 AM

কেরালার অতি জনপ্রিয় মাছ ‘ক্যারিমীনমাছ চাষের অভিনব উদ্যোগ গ্রহন নন্দীগ্রাম-১ ব্লকের মৎস্য বিভাগের

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: নন্দীগ্রাম-১ নম্বর ব্লকের বিস্তীর্ন এলাকা জুড়ে যে ঈষদ নোনাজল ও মিষ্টি জলের মাছ চাষ।  বছরে তিন মাস হয় ভেনামী চিংড়ির চাষ। এই চিংড়ি বিদেশের বাজারে রপ্তানী হয়ে আসে বৈদেশিক মুদ্রা। কিন্তু তিন মাস বাদে বাকি সময় তেমন চাষ হয়না, পুকুর খালি পড়ে থাকে। আর এই সময় বিকল্প মাছ চাষের নতুন দিশা দেখাচ্ছে ব্লকে নিযুক্ত নতুন মৎস্যচাষ সম্প্রসারন আধিকারিক সুমন কুমার সাহু।

মিল্ক ফিশ, কারিমীন, গিফট তিলাপিয়া, মালেট, ভেটকী সহ বিভিন্ন মাছ চাষের বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করেন। অব্যবহৃত পুকুর জলাশয়ে মাছ চাষ সহ পরিবেশ বান্ধব উপায় কিভাবে মাছ চাষ করা যায় সেই বিষয়ে নন্দীগ্রাম অ্যাকুয়া ফার্মার ওয়েল ফেয়ার সোসাইটির প্রগতিশীল ভেনামী চিংড়ি চাষিদের সাথে ইতিমধ্যে আলোচনা করেছেন ব্লকের মৎস্য আধিকারিক সুমন কুমার সাহু। এলাকার মাছ চাষিদের ৮-১০ জনের দল গঠন করে আলাদা করে তাদের বিশেষ প্রশিক্ষনের উদ্যোগও গ্রহন করেছে নন্দীগ্রাম-১ মৎস্য বিভাগ। ইতি মধ্যে গোকুল নগর অ্যাকুয়া ফিশ প্রোডাকশান গ্রুপ ও ফিশ প্রোডাকশান গ্রুপ গঠন হয়েছে। শুধু দল গঠনই নয়, হাতে কলমে এই বিকল্প মাছ চাষের প্রদর্শনী ক্ষেত্র গ্রহন করা হয়েছে।

৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ শুক্রবার কেন্দ্রীয় নোনাজল মৎস্য গবেষনা কেন্দ্রএর কাকদ্বীপ রিসার্চ সেন্টারের ফিশ-হ্যাচারী থেকে তিনশোটি কারিমীন মাছের চারা আনা হয়েছে। নন্দীগ্রাম-১নম্বর ব্লক মৎস্যবিভাগের প্রযুক্তিগত সহায়তায়, কেরালার জনপ্রিয় কারিমীন মাছের চাষ শুরু করল আমতলিয়া পূর্ব গ্রামের মাছ চাষি সোমনাথ ভৌমিক। সোমনাথ জানান, “ব্লক মৎস্য আধিকারিকের উৎসাহে এই বিকল্প মাছ চাষ শুরু করলাম, সুমন বাবুর পরামর্শে আগামীদিনে পরিবেশ বান্ধব জৈব মাছ চাষের মডেল তৈরি করব”।

 

আমতলীয়া পূর্ব গ্রামের মৎস্য খামারে কেরালার রাজ্য-মাছ কারমিন মাছের চারা ছাড়েন বিডিও সুমিতা সেনগুপ্ত। উপস্থিত ছিলেন মৎস্য আধিকারিক সুমন কুমার সাহু সহ  এলাকার উৎসাহি অন্যান্য মাছচাষি। মৎস্য আধিকারিক সুমন কুমার সাহু বলেন, পরিবেশবান্ধব মাছচাষের মাধ্যমে স্বনির্ভরতার লক্ষে মাছচাষিদের আরো বেশি প্রযুক্তিগত সহায়তা দেওয়া হবে।

তিনি আরো জানান, এলাকার আর্থসামজিক উন্নয়নে ও স্বনির্ভিরতার লক্ষে এলাকার মাছ চাষের উন্নয়নে সকল প্রকার সহায়তা দেওয়া হবে। নন্দীগ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মুক্তি রানী মাইতি বলেন, অত্যন্ত অভিজ্ঞ ও দক্ষ মৎস্য আধিকারিককে পেয়ে এলাকার মাছ চাষিদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ সৃষ্টি হয়েছে, আগামীদিনে সরকারি মৎস্য প্রযুক্তিগত সহায়তা যেমন দেওয়া হবে তেমনি মাছ চাষিদের আরো বেশি করে প্রশিক্ষিত করা হবে।

Mailing List