মেয়ের বিয়ের ৪ লক্ষ টাকা মা তারার পায়ে ছোঁয়াতে তারাপীঠে গিয়েছিলেন‌ বাবা, মাঝপথে ছিনতাই হল টাকা ভর্তি ব্যাগ

মেয়ের বিয়ের ৪ লক্ষ টাকা মা তারার পায়ে ছোঁয়াতে তারাপীঠে গিয়েছিলেন‌ বাবা, মাঝপথে ছিনতাই হল টাকা ভর্তি ব্যাগ
07 May 2022, 01:00 PM

মেয়ের বিয়ের ৪ লক্ষ টাকা মা তারার পায়ে ছোঁয়াতে তারাপীঠে গিয়েছিলেন‌ বাবা, মাঝপথে ছিনতাই হল টাকা ভর্তি ব্যাগ

 

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান

 

মেয়ের বিয়ের খরচের জন্যে জোগাড় করা ৪ লক্ষ টাকা তারাপীঠে গিয়ে মা তারার পায়ে স্পর্শ করাতে গিয়েছিলেন। মা তারার পায়ে স্পর্শ করে আর সহজে বাড়ি ফেরা হল না বাবা মায়ের। পুজো দিয়ে বাড়ি ফেরার ট্রেন ধরার জন্য স্টেশনে অপেক্ষা করার সময়ে মেয়ের সামনেই বাবার হাত থেকে ওই টাকা ভর্তি ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে পালালো দুষ্কৃতীরা।

শুক্রবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে বর্ধমান-রামপুরহাট লুপলাইনের বনপাশ রেলস্টেশনে। খবর পেয়েই পূর্ব বর্ধমানের গুসকরা ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ওই পরিবারটির কাছ থেকে ঘটনা বৃত্তান্ত শোনে। এর পরেই পুলিশ আউশগ্রাম ও গুসকরা সহ বিভিন্ন সড়কপথে নাকা চেকিং শুরু করে। আর তাতেই মেলে সাফল্য। তিন ঘন্টার মধ্যেই ধরা পড়ে যায় দুই দুস্কৃতী। তাদের কাছ উদ্ধার হয়েছে প্রায় ৩ লক্ষ টাকা। পুলিশ বাকি টাকা উদ্ধারের জন্যেও জোরদার তৎপরতা চালাচ্ছে।

 

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুরের বাসিন্দা দিবাকর মিশ্র স্ত্রী, মেয়ে ও ছেলেকে নিয়ে এদিন তিনি তারাপীঠে পুজো দিতে যান। ফেরার পথে আউশগ্রামের বনপাশ স্টেশনে ঘটনাটি ঘটে। দিবাকরবাবু জানিয়েছেন, সামনেই তাঁর মেয়ের বিয়ে। তার আগে তারাপীঠে তারা মায়ের কাছে পুজো দিতে বাসে করে তারাপীঠ গিয়েছিলেন। বাসে চড়েই সেখান থেকে এদিন ফিরছিলেন। পথে তাঁরা জানতে পারেন আউশগ্রামের বনপাশ স্টেশন থেকে সরাসরি ব্যারাকপুর ফিরে  যাওয়ার ট্রেন পাওয়া যাবে। তাই বনপাস স্টেশনে যাবার জন্য বড় চৌমাথায় তাঁরা বাস থেকে নেমে পড়েন। সেখান থেকে টোটোয় চেপে তাঁরা চারজন বনপাশ স্টেশনে পৌছান।

দিবাকরবাবু বলেন, আমার হাতেই ছিল ব্যাগটি। তাতে ৪ লক্ষ টাকা ছিল। মেয়ের বিয়ের খরচের টাকা আগে তারা মায়ের পায়ে স্পর্শ করাবেন এই মানত ছিল বলে ওই টাকা নিয়েই তিনি পুজো দিতে গিয়েছিলেন। বনপাশ স্টেশনে ছেলে শুভানন্দ, মেয়ে স্বরস্বতী, স্ত্রী সন্ধ্যাদেবী ও তিনি কিছুটা দুরে দূরে দাঁড়িয়েছিলেন। দিবাকর বাবু জানান, ওই সময়ে হঠাৎই দুই ছিনতাইবাজ এসে তাঁর হাত থেকে টাকাভর্তি ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে ছুটে পালায়। তিনি ও তাঁর ছেলে পিছু তাড়া করেও ছিনতাইবাজদের ধরতে পারেন না। কারণ খানিকটা দূরেই এক যুবক বাইক নিয়ে দাঁড়িয়েছিল। ওই দুই ছিনতাইবাজর সেই বাইকে চেপে দ্রুত পালিয়ে যায়।  

 

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কল্যাণ সিংহরায় জানিয়েছেন, বনপাশ স্টেশনে রেলযাত্রীর কাছ থেকে ৪ লক্ষ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনার পর পুলিশ দ্রুত আউশগ্রামের বিভিন্ন সড়ক পথে নাকাচেকিং শুরু করে। তাতেই ধরা পড়ে যায় দুই দুস্কৃতী। তারপর একটি বাইক আটকে চেকিং করার সময় উদ্ধার করা হয় টাকা ভর্তি ব্যাগ। তবে এখনও পর্যন্ত তিল লক্ষ টাকা উদ্ধার হয়েছে। বাকি টাকাও উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।’’ তদন্তের স্বার্থে অতিরিক্ত পুলিশ এখনই ধৃতদের নাম পরিচয় জানাতে চায়নি।

ads

Mailing List