যে কোনও সময়ে পাকিস্তানে বন্ধ হতে পারে মোবাইল ও নেট পরিষেবা

যে কোনও সময়ে পাকিস্তানে বন্ধ হতে পারে মোবাইল ও নেট পরিষেবা
02 Jul 2022, 04:00 PM

যে কোনও সময়ে পাকিস্তানে বন্ধ হতে পারে মোবাইল ও নেট পরিষেবা

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: কার্যত প্রতিবেশী দেশ শ্রীলঙ্কার পথেই হাঁটছে ভারতের আরও এক প্রতিবেশি পাকিস্তান। দেশজুড়ে বাড়ছে আর্থিক সংকট। পরিস্থিতি এতটাই ঘোরালো যে, এবার দেশজুড়ে মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবাও বন্ধ হতে চলেছে। এমনই আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দেশের জাতীয় তথ্যপ্রযুক্তি বোর্ডের সদস্যরা। আম জনতাকে আরও চিন্তায় ফেলে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, জুলাই থেকে দৈনিক বিদ্যুৎ পরিষেবা চালিয়ে যাওয়া আরও কঠিন হবে, যার অর্থ বাড়বে লোডশেডিং।

সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করে তথ্য প্রযুক্তি বোর্ড দেশের টেলিকম সংস্থাগুলিকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে, দেশব্যাপী দীর্ঘ সময়ের জন্য বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে পরিস্থিতি ক্রমশ খারাপ হচ্ছে। এর ফলে পরিষেবা বজায় রাখা ক্রমেই কঠিন হয়ে উঠছে। সব মিলিয়ে প্রতিবেশী পাকিস্তানের পরিস্থিতি যে ক্রমেই জটিল হয়ে উঠছে, তা পরিষ্কার। টালমাটাল সরকার, উর্ধ্বমুখী ঋণ, সেই সঙ্গে করোনা মহামারি, এই তিনের মিলিত ধাক্কায় বেসামাল পাক অর্থনীতি। মহামারিতে জোর ধাক্কা খেয়েছে দেশের কৃষি ও শিল্পের পণ্য উৎপাদন ও রফতানি।

এর জেরে তলানিতে বিদেশি মুদ্রার ভাণ্ডার। এর প্রভাব পড়ছে আমদানিতে। ফলে খাবার থেকে ওষুধ, সব কিছুর দামই লাগামছাড়া হারে বাড়ছে। খাদ্য ও ওষুধ-সহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের জোগান বজায় রাখতে বিলাসী পণ্য আমদানি নিষিদ্ধ করেছে পাক সরকার। কিন্তু তাতেও পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যাচ্ছে না। এই অবস্থায় কী করা হবে তা নিয়ে একাধিক বিশেষজ্ঞরা একাধিক মতামত দিচ্ছেন। আইএমএফ থেকে ৯০ কোটি ডলার ঋণ চেয়েছে পাকিস্তান সরকার। জবাবে আন্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডার বা আইএমএফ সাফ জানিয়ে দিয়েছে, এই পরিস্থিতি থেকে বের হওয়ার একমাত্র রাস্তা খরচা কমিয়ে আয় বাড়ানো। এখন সেটাই করতে হবে পাক সরকারকে। তবেই তারা পাকিস্তানের চাহিদা মেনে ঋণ মঞ্জুর করবে। ইমরান খানকে হঠিয়ে এখন সরকার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ।

Mailing List