মণিপুরে ৪০ আসনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা, ম্যাজিকেই সরকার গড়বে বিজেপি, জানলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী

মণিপুরে ৪০ আসনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা, ম্যাজিকেই সরকার গড়বে বিজেপি, জানলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী
07 Feb 2022, 12:25 AM

মণিপুরে ৪০ আসনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা, ম্যাজিকেই সরকার গড়বে বিজেপি, জানলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী

 

আন ফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: এই মাসেই নির্বাচন মণিপুর বিধানসভাতে। সেই রাজ্যে দুদফায় ভোট গ্রহণ করা হবে।

গত বারে মাত্র ২১ টি আসনে জিতেছিল বিজেপি। কিন্তু সরকার গঠন করেছিল তারাই। এবারও সেখানে সরকার গঠন তারাই করবে বলে দাবি করেছে বিজেপি।

আর সেখানে কতগুলি আসন জিততে হবে সেই জন্য লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিয়েছেন মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রী এন বিরেন সিং। তাঁর দাবি, এবারও সেই রাজ্যে ক্ষমতায় আসবে বিজেপি। মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রীর দাবি,  তাঁরা সেই রাজ্যে দুই তৃতীয়াংশ আসনে জিতবেন। অর্থাৎ, ৬০টি আসনের মধ্যে ৪০টি আসনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগোচ্ছেন তাঁরা বলেও জানিয়ে দিলেন তিনি।  

ইতিমধ্যেই সেই রাজ্যের ৬০ কেন্দ্রেই প্রার্থী ঘোষণা করেছে গেরুয়া শিবির। সেই তালিকা আবার পছন্দ হয় নি দলের অনেকেই। সেই কারণে সেখানে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তাঁরা। একই সঙ্গে দল ছেড়েছেন একাধিক নেতা, বিধায়ক। তবে এই সবকে আমল দিতে চাইছেন বিজেপির নেতারা।

মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, রাজ্যে প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেস। কিন্তু উত্তর পূর্ব ভারতের অন্য এলাকার মতই মনিপুরেরও কংগ্রেস দুর্বল হয়েছে। এন বিরেন সিং –র দাবি, গত ৫ বছরে তাঁর সরকার সেখানে যে উন্নয়নের কাজ করেছে তার নিরিখেই এবারেও তাঁদেরকেই আবার বেছে নেবেন মণিপুরের বাসিন্দারা।

২০১৭ সালের নির্বাচনে মণিপুরে ৬০টি আসনের মধ্যে ২১টি আসনে জিতেছিল বিজেপি। কংগ্রেস জিতেছিল ২৮টি আসনে। কিন্তু এনপিপি (NPP) এবং এনপিএফের (NPF) সমর্থন পেয়ে সেই রাজ্যে প্রথমবারের জন্য সরকার গঠন করে বিজেপি। পরে কংগ্রেস থেকে অনেকেই যোগ দেন তাদের দলে।  এই বছরের বিধানসভা নির্বাচনের আগেও একাধিক কংগ্রেস নেতা , বিধায়ক যোগ দিয়েছেন পদ্ম শিবিরে।

২৭ ফেব্রুয়ারি এবং ৩ মার্চ, দু দফায় ভোট নেওয়া হবে মণিপুরে। ভোট গননা হবে ১০ মার্চ বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

 মণিপুরের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, গত বার আমরা যতগুলি আসনে জিতেছিলাম, এবার তার অন্তত দ্বিগুণ আসনে আমরা জিততে চাইছি। সেই লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছি আমরা। সেই সঙ্গেই তিনি জানান, নির্বাচনের আগে কোনও দলের সঙ্গে তাঁদের আসন সমঝোতা না হলেও ভোটের পরে জোটের রাস্তা খোলা থাকবে।  সেখানে আলাদা ভাবে লড়াই করছে এনপিপি এবং এনপিএফ।

Mailing List