কম সময়েও অনেক ভালো জায়গা ঘোরা যায়! কিভাবে? জানাচ্ছেন ডঃ গৌতম সরকার, ছোট ভ্রমণ-ভালো ভ্রমণ/ পর্ব -১

কম সময়েও অনেক ভালো জায়গা ঘোরা যায়! কিভাবে? জানাচ্ছেন ডঃ গৌতম সরকার, ছোট ভ্রমণ-ভালো ভ্রমণ/ পর্ব -১
29 Aug 2021, 01:10 PM

কম সময়েও অনেক ভালো জায়গা ঘোরা যায়! কিভাবে? জানাচ্ছেন গৌতম সরকার, ছোট ভ্রমণ-ভালো ভ্রমণ/ পর্ব -১

 

ডঃ গৌতম সরকার

 

পর্ব -১

ভ্রমণপ্রিয় মানুষের কাছে ভ্রমণ একটা অতি প্রিয় গানের মুখরার মতো, যা চেতনে - অবচেতনে মনের মাঝে অহর্নিশ গুনগুন করতে থাকে, আপনি যতই ব্যস্ত মানুষ হোন বা ব্যাস্ততার ভান দেখিয়ে সেই মনটানা সুরকে দূরে ঠেলতে চান, বেশিদিন যে পারবেন না তা আপনার চেয়ে বেশি আর কে জানে!

 

কিন্তু সমস্যা হল আমাদের মধ্যে কজনের পক্ষেই বা সম্ভব হয় চার মাস আগে থেকে সমস্ত ট্যুরের প্ল্যান বানানো, তাই একেবারে শেষ মুহূর্তে অফিসের বস বা স্কুলের হেড মাস্টারমশাই অথবা প্রিন্সিপালের অনুগ্রহে কয়েকটা দিন ম্যানেজ করতে পারলে তখন সমস্যা দাঁড়ায় কিভাবে যাবো আর কোথায় যাবো৷ কিভাবে যাবেন ব্যাপারটা আপনাদের ওপরেই ছেড়ে দিলাম কিন্তু জায়গা বাছার ব্যাপারে কী হবে?

 

প্রথমতঃ সিজনে কয়েক দিনের মধ্যে দার্জিলিং, পুরী, গ্যাংটক, ওল্ড সিল্ক রুটে ভালো হোটেলে জায়গা পাওয়া সম্ভব নয়। তাছাড়া অফিসের স্ট্রেস কাটাতে আপনি হয়ত চাইছেন না ভিড়ভাট্টার মধ্যে যেতে৷ তাহলে উপায়? উপায় আছে। আপনি নিশ্চয়ই চাইছেন একটু নিরালা নির্জনে পরিবারের সাথে সময় কাটাতে, তাহলে কয়েকটা জায়গার কথা আমি আমার নিজ অভিজ্ঞতা থেকে বাতলাচ্ছি:

“যদি ধনী হতে চাও, বেশী বেশী ভ্রমণ করো৷”- আল-হাদিস

১. বিকস্থাং - পশ্চিম সিকিমের এই নির্জন ট্যুরিস্ট স্পটটি নিউ জলপাইগুড়ি থেকে ১২৪ কিলো মিটার দূরে৷ শিলিগুড়ি থেকে তিস্তাবাজার-মেল্লি-জোরথাং হয়ে এখানে পৌঁছতে চার-সাড়ে চার ঘন্টা সময় লাগবে৷ এখান থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে সিকিমের আরও দুটো জনপ্রিয় তীর্থস্থান হল-রিনচেনপং আর কালুক৷

থাকার বেশ ভালো জায়গা : ব্লিস ভিলেজ রিসর্ট

বিকস্থাং, মঙ্গলাবাড়ি, পশ্চিম সিকিম

০৭৭৯৭৮-৬৭৮৮৮;

কি দেখবেন?-

ক) কাঞ্চনজঙ্ঘার সমুদ্ধত রূপ;

খ) বুদ্ধিস্ট মনাস্ট্রি

গ) পেলিং, রিনচেনপং এবং কালুক

 

“একটি অদ্ভুত শহরে একা জাগ্রত থাকা, অন্যরকম এক অনুভূতি৷”- ফ্রেয়া স্টাক

 

২. সিংলিং: ৬৪০০ ফুট উচ্চতার সিংলিংয়ে যেতেও আপনাকে একই রাস্তায় জোরথাং পেরোতে হবে, রাস্তা গেছে সোরেং হয়ে৷ জোরথাং থেকে রাস্তা চড়াই হয়ে স্বর্গের কাছাকাছি পৌঁছেছে I চারপাশে প্রকৃতি, পাহাড় আর বরফাবৃত পাহাড় চূড়া ছাড়া আছে একমাত্র দূষণ রাইয়ের (মাস্টারমশাই ) হোম স্টে৷

যোগাযোগ: ০৩৫৯৫-২৫৩৫৬০

কি দেখবেন: ক) মন ভালো করা প্রকৃতি;

খ) প্রচুর পাখি;

গ) সরল -সহজ পাহাড়ি মানুষ;

ঘ) রাতের বেলায় বনফায়ারের অবসরে আলোকোজ্জ্বল পাহাড়ের রানী দার্জিলিং৷

 

“আমরা বিভ্রান্তির জন্য ঘোরাফেরা করি, তবে আমরা পরিপূর্ণতার জন্য ভ্রমণ করি৷”- হিলায়ার বেলোক

 

৩. রিকিসুম: কালিম্পং থেকে আলগাড়া হয়ে রাস্তা গেছে রিকিসুমে৷ আলগাড়া থেকে দূরত্ব পাঁচ কিলোমিটার৷  

থাকার একমাত্র ভালো জায়গা: স্বর্ণশিখর ট্যুরিস্ট লজ অ্যান্ড হোম স্টে৷

যোগাযোগ: ৯৯৩২৭-৭৫৩১৯; ৯৮৩২০-৩৩৯১৬

দেখার জায়গা: রিকিসুম জায়গাটি হল সবুজের সংসার৷ হোমস্টে ছেড়ে বনের কাঁচা পথ ধরে হাফ কিলোমিটার হেঁটে গেলেই ৩৬০ ডিগ্রী জুড়ে গোটা আকাশ আপনার একান্ত আপন, আর ১৮০ ডিগ্রী জুড়ে চোখের সামনে সপারিষদ কাঞ্চনজঙ্ঘা৷ তার সাথে উপরিপাওনা পাহাড়ি গ্রাম আর গ্রামের সহজ সরল মানুষদের জীবন যাত্রার চাক্ষুষ অভিজ্ঞতা৷

 

“নতুন কোনো শহরে সকালবেলা ঘুম থেকে ওঠা পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ আনন্দের একটি৷”- ফ্রেয়া স্টাক

 

৪. রামধুরা: এই জায়গাটি খুব তাড়াতাড়ি পশ্চিমবঙ্গের পর্যটন মানচিত্রে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে৷ এটিও আলগাড়া আর কালিম্পং শহরর খুব কাছে৷  আমরা গিয়েছিলাম ২০১৪ সালে, তারপর অনেককে সাজেস্ট করেছি আর সবাইয়ের অভিজ্ঞতা খুব মনোরম হয়েছে।

থাকার জায়গা: ক) জোজো লেপচা হোম স্টে

৮০১৬১-০৫৭২৭; ৯৬৩৫১-১৯৯৫৮

খ) কো কো মেন্ডো ট্যুরস অ্যান্ড ট্রাভেলস

৯৬৪১২-৯২৮০৩; ৭০৩১০-৪৮১৪১; ৭৬০২৬-৭১৯৭৬

দেখার জায়গা: হেঁটে রামধুরা গ্রামের এপ্রান্ত -ওপ্রান্ত ঘুরে বেড়ান; রিকিসুমের মতো হাতের কাছে না হলেও উত্তর আকাশ জুড়ে বিরাজিত তুষারশুভ্র পর্বত চূড়া৷ দুটোদিন এক অনাবিল আনন্দে কেটে যাবে৷

 

“আজ থেকে বিশ বছর পর আপনি এই ভেবে হতাশ হবেন যে, আপনার পক্ষে যা যা সম্ভব ছিল তা করতে পারেননি৷ তাই নিরাপদ আবাস ছেড়ে বেরিয়ে পড়ুন৷ আবিষ্কারের জন্য যাত্রা করুন, স্বপ্ন দেখুন আর শেষমেষ আবিষ্কার করুন৷”- মার্ক টোয়েন

 

(চলবে)…

ads

Mailing List