বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামছে বামেরা

বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামছে বামেরা
01 Aug 2020, 04:06 PM

বিদ্যুৎ বিল নিয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামছে বামেরা

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: সিইইএসসি বিদ্যুতের সংশোধিত বিল কবে গ্রাহকদের হাতে দিতে পারবে তা এখনও অনিশ্চিত। সিইএসসি-র ভাইস প্রেসিডেন্ট অভিজিৎ ঘোষ জানিয়েছেন, "আমরা এখন এপ্রিল, মে মাসের সংশোধিত বিল ইলেক্ট্রিক বিল তৈরির কাজ করছি।"

আপাতত বিল না দেওয়ার কথা যতটা না গ্রহকদের স্বস্তি দিয়েছে, তার চেয়ে বেশি চিন্তায় রয়েছেন এই ভেবে যে যদি আবারও সংশোধিত বিলে বাড়তি টাকার বোঝা চেপে বসে? তবে রাজ্যের বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, "রাজ্যের যে অংশে সিইএসসি-র বিদ্যুৎ গ্রাহকেরা আছেন তাঁদের এপ্রিল, মে মাসের টাকা এখন দিতে হবে না। জুন মাসে সিইএসসি মিটার রিডিং নিতে পেরেছে। তাই জুন মাসের বিল দিলেই হবে। কিন্তু সিইএসসি কারোর বাড়ির বিদ্যুতের লাইন কাটবেনা।"

তবে বিদ্যুৎমন্ত্রীর এই মন্তব্যের প্রতিবাদে এখনও রাস্তায় নেমে সিইএসসি-র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছেন বামপন্থীরা। সিপিএম কলকাতা জেলা কমিটির সম্পাদক কল্লোল মজুমদার বলেছেন, "সিইএসসি এখনও এপ্রিল, মে মাসের সংশোধিত বিল দিতে পারলেন না। আমাদের আন্দোলনের কারণ এটাই। আমরা জানতে চাই কিসের ভিত্তিতে ২০ জুলাই সিইএসসি বলেছিল সংশোধিত ইলেকট্রিক বিল তারা দ্রুত গ্রাহকদের বাড়িতে পৌঁছে দেবে? আমাদের আন্দোলন এখনও চলছে। আর কয়েকটা দিন অপেক্ষা করে আমরা কলকাতায় ১৬টি বাম ও সহযোগী দল একত্রে আবার বৃহত্তর আন্দোলনে যাব। কারণ এই ভুল সিইএসসি করেছে না কি তাদের দিয়ে নিজেদের আর্থিক স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য তৃণমূল এই কাজ করিয়েছে সেটাও দেখতে এবং ভাবতে হবে। না হলে মাননীয়া কেন এখনও নীরব?"

এই একই অভিযোগ করেছেন বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার। তিনি বলেছেন, "তৃণমূল তাদের নির্বাচনী ফান্ড তৈরির জন্য সিইএসসি-কে কাজে লাগিয়েছিল। কিন্তু জনগণ ও আমাদের প্রতিবাদে সিইএসসি পিছিয়ে গেছে।" তবে সিইএসসি, শাসক, বিরোধীর এই বিতর্কের মাঝে পড়ে সাধারণ মানুষের প্রাণ ওষ্ঠাগত।

Mailing List