পুজোর আগেই চালু হবে কামারহাটির ক্যানসার কেয়ার সেন্টার?

পুজোর আগেই চালু হবে কামারহাটির ক্যানসার কেয়ার সেন্টার?
04 Jul 2022, 10:45 AM

পুজোর আগেই চালু হবে কামারহাটির ক্যানসার কেয়ার সেন্টার?

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: পুজোর আগেই চালু হতে চলেছে কামারহাটির ক্যানসার কেয়ার সেন্টার। রাজ্যে যে কয়টি টার্সিয়ারি ক্যানসার কেয়ার সেন্টার তৈরি হচ্ছে কামারহাটির সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজের কাজই সব থেকে এগিয়ে বলে দাবি কর্তৃপক্ষের। এই কেন্দ্রটি খুলে গেলে রাজ্যের ক্যানসার চিকিৎসা আরও কয়েক ধাপ এগিয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।                     

এখন সাগর দত্ত মেডিক্যাল কলেজে ক্যানসারের চিকিৎসার চাহিদা প্রচুর আছে। রেডিও থেরাপি এবং অঙ্কলজির বহির্বিভাগে উপচে পড়ে রোগী। সার্জারি ও মেডিসিন বিভাগেও ভর্তি থাকেন ক্যানসারের রোগী। রেডিওলজি বিভাগে বেশির ভাগ পরীক্ষা নিরীক্ষাই হয় ক্যানসারের। তাই ক্যানসারের চিকিৎসার জন্য এখানে অত্যাধুনিক যন্ত্র এবং অভিজ্ঞ চিকিৎসদের দ্বারা  বিশেষ ব্যবস্থা হলে আরও বেশি সংখ্যক রোগী উপকৃত হবেন।                     

প্রাথমিক ভাবে ঠিক হয়েছে, কেন্দ্রটি চালু হলেই এখানে কেমোথেরাপির ডে কেয়ার দেওয়ার জন্য রোগীদের রাখা হবে। এখন বর্তমান পরিকাঠামোতে দিনে ৪/৫ জন করে রোগীর কেমো দেওয়া হয়। কিন্তু ক্যানসার কেন্দ্রটি চালু হলে  ৩০ জন করে রোগীকে কেমো দেওয়া যাবে। আপাতত এটি কেমোথেরাপির জন্যই ব্যবহার করা হবে। পরে ক্যানসারের চিকিৎসার  সব ধরনের যন্ত্রপাতি এলে অন্যান্য পরিষেবাও চালু হয়ে যাবে।                                               

কলেজ অফ মেডিসিন এন্ড সাগর দত্ত হাসপাতালের অধ্যক্ষ ড. পার্থ প্রতীম প্রধান জানান, রেডিয়েশনের জন্য যন্ত্র বসানোর জন্য ভাবা অ্যাটমিক রিসার্চ সেন্টার থেকে অনুমোদন প্রয়োজন। তাছাড়া যেমন যেমন টাকা আসবে তেমন ভাবেই যন্ত্র কেন হবে। রেডিয়েশনের যন্ত্রের দামও অনেক বেশি। কিন্তু ডে কেয়ার সেন্টারটির জন্য যেহেতু কোনও অনুমতির প্রয়োজন নেই তাই সেটি দ্রুতই শুরু করে দেওয়া হবে।                        

বস্তুত রেডিয়েশন যন্ত্র লিনিয়ার অক্সিলারেটর থেকে যে বিপুল পরিমাণে বিকিরণ উৎপন্ন হয় সেটি থেকে সাধারণ মানুষের যাতে ক্ষতি না হয় সেই জন্য খতিয়ে দেখবেন বিশেষজ্ঞরা। সেই কাজে বেশ কিছুটা সময় লাগবে।                

জানা গিয়েছে, ক্যানসার সেন্টারের জন্য নতুন একটি  তিনতলা বিল্ডিং তৈরি করা হয়েছে। যার কাজ প্রায় শেষের পথে। বিদ্যুতের কিছু কাজ এখন চলছে। এর নীচে বেসমেন্টে বাঙ্কার তৈরি করা হয়েছে যেখানে ওই রেডিয়েশন যন্ত্র বসবে। পাশাপাশি, ওপরের তিনটি তলায় হবে পুরোপুরিভাবে ক্যানসারের চিকিৎসা। এখন জায়গা কম থাকায় বহির্বিভাগে রোগীদের ভিড় বেশি হচ্ছে। নতুন বিল্ডিংটি চালু হয়ে গেলে সেখানেই  বহির্বিভাগটি সরিয়ে আনা হবে।  আর ধীরে ধীরে শয্যাও বাড়ানো হবে। আপাতত ৩০ টি শয্যা দিয়ে ওই নতুন বিল্ডিং চালু হলেও ৬০ টি শয্যা করার জায়গা আছে। এর পর এটিও বাড়ানো হবে বলে জানা গিয়েছে।                                      

অধ্যক্ষ জানান, ক্যানসার কেয়ার সেন্টার তৈরির জন্য ধাপে ধাপে চিকিৎসক নিয়োগ করা হয়েছে। এখন রেডিওথেরাপি এবং অঙ্কলজি বিভাগে প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসক রয়েছেন। পরে আরও চিকিৎসক আসবেন।                   

উল্লেখ্য, রাজ্যে তিনটি ক্যানসার কেয়ার সেন্টার তৈরি হচ্ছে। কামারহাটির সাগর দত্ত ছাড়াও বর্ধমান এবং মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে বাকি দুটি। বৃহত্তর কলকাতার মধ্যে এই রকম একটি কেন্দ্র চালু হলে অনেক মানুষের পরিষেবা পেতে সুবিধা হবে। এই প্রসঙ্গে ক্যানসার বিশেষজ্ঞ, এনআরএস মেডিক্যাল কলেজের রেডিওথেরাপি বিভাগের প্রধান চিকিৎসক, অধ্যাপক ড. শ্রীকৃষ্ণ মণ্ডল বলেন, ' সরকারি পরিসরে যত বেশি ক্যানসার কেয়ার সেন্টার হবে তত মানুষ বিনামূল্যে চিকিৎসা পরিষেবা পাবে। এই ধরনের কেন্দ্র আরও হাওয়া দরকার। '

ads

Mailing List