সৌরভ বিদায়ের 'ড্যামেজ কন্ট্রোলে' জয় শাহদের হাতিয়ার মহিলা ক্রিকেট, কেন?

সৌরভ বিদায়ের 'ড্যামেজ কন্ট্রোলে' জয় শাহদের হাতিয়ার মহিলা ক্রিকেট, কেন?
28 Oct 2022, 09:15 AM

সৌরভ বিদায়ের 'ড্যামেজ কন্ট্রোলে' জয় শাহদের হাতিয়ার মহিলা ক্রিকেট, কেন?

 

আনফোল্ড বাংলা বিশেষ প্রতিবেদনঃ দেশে বা বিদেশের ক্রিকেট সার্কিটে 'প্রিন্স অফ ক্যালকাটা' সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের জনপ্রিয়তাকে অস্বীকার করা কঠিন। সেটা বর্তমান বিসিসিআই কর্তারাও হাড়ে হাড়ে জানেন। আরও জানেন নেপথ্যে থাকা তাঁদের মদতদাতা রাজনীতির কারবারিরাও। সৌরভকে বোর্ড সভাপতির পদ থেকে হঠানোর সময়ও সেটা মাথায় ছিল কর্তাদের। কাজটা যে কঠিন ছিল তাঁরা জানতেন। কিন্তু ওপায় ছিল না সৌরভকে সরানো ছাড়া। তাঁর পিছনে কোন অঙ্ক ছিল সে সব এখন অতীত। কিন্তু সৌরভকে সরাতে গেলে এর যে এর প্রবল অভিঘাত হবে সেটা আগেই টের পেয়েছিলেন তাঁরা। তাই সৌরভকে সরিয়ে দেওয়ার পর সেই অভিঘাত সামলাতে কোন টোটকা ব্যবহার করা যায় তারই খোঁজে ছিল টিম জয় শাহ। তাঁদের সামনে প্রধান চ্যালেঞ্জ ছিল সৌরভের জনপ্রিয়তা। আর সমস্যাটা ছিল সেখানেই।

বেহালার ছেলের পর্বত প্রমাণ জনপ্রিয়তার সঙ্গে টক্কর দেওয়ার মতো একটা নাম তাঁরা খুঁজছিলেন। কিন্তু বিধি বাম। সে রকম কাউকে রাজি করাতে পারেননি তাঁরা। আর যারা রাজি ছিলেন, তাঁদের ওপর আবার ভরসা ছিল না জয় শাহর মেন্টরদের। তাই সে রাস্তা থেকে সরে এসে অন্য রাস্তার খোঁজে নেমে পড়েন ক্ষমতাসীন শিবিরের ক্রাইসিস ম্যানেজাররা। শেষ পর্যন্ত জনপ্রিয়তার সঙ্গে লড়াইয়ে জনপ্রিয় সিদ্ধান্তকেই হাতিয়ার করার সিদ্ধান্ত নেন বর্তমান বোর্ড কর্তারা। সৌরভকে সরানোর পর বোর্ড প্রশাসন সম্পর্কে জনমানসে যে নেতিবাচক ধারনা তৈরি হয়েছিল তা সরিয়ে বোর্ডকে সঠিক ট্র্যাকে ফেরানোর একটা তাগিদ ছিল কর্তাদের মনে। এই ধারণা থেকেই বেছে নেওয়া হল মহিলা ক্রিকেটকে। এতে এক ঢিলে অনেক পাখি মারলেন বোর্ড কর্তারা।

প্রথমত, তাঁরা ক্রিকেট বা ক্রিকেটারদের বিরোধী নয়, এমন একটা ধারণাকে শুরুতেই ভেঙে দেওয়ার চেষ্টা হল। দ্বিতীয়ত গত ৫-৬ বছর ধরে ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট টিম আন্তর্জাতিক সার্কিটে ধারাবাহিক ভাবে ভালো খেলছে। ফলে দেশের মধ্যে খুব ধীর গতিতে হলেও মহিলা ক্রিকেটের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বাড়ছে দর্শক। যা অত্যন্ত ভালো লক্ষ্মণ। তাই মেয়েদের ক্রিকেট নিয়ে কোনও জনপ্রিয় সিদ্ধান্ত আলাদা মাত্রা এনে দেবে। এই অঙ্কও কাজ করেছে। আর মেয়েদের এই দাবিটাও অনেক পুরনো। ক্রিকেট দুনিয়ার সবচেয়ে বিত্তশালী বোর্ড হয়েও মেয়েদের প্রতি এই অসাম্য অনেকেই মানতে পারছিলেন না। তাই এই অসাম্য দূর করার ভাবনা চিন্তা অনেকদিনই চলছিল বোর্ডের অন্দরে। এবার সুযোগ বুঝে সেটাতেই শান দিলেন ক্রিকেটের শাহেরা। ম্যাচ ফিজ নিয়ে পুরুষ-মহিলাদের অসাম্য দূর করে বোর্ডের ধাক্কা খাওয়া ইমেজ কিছুটা ফেরানোর চেষ্টা হল। আর সেই সঙ্গে এটাও বোঝানো গেল, এতদিনের দাবি নিয়ে সৌরভ সভাপতি হয়েও কোনও উচ্চবাচচা করেননি। এবার দায়িত্বে ফিরেই যেটা করে দেখিয়ে দিলেন জয় শাহরা। তবে এদিনের সিদ্ধান্ত বোর্ড রাজনীতির দাবা খেলায় জয় শাহদের কতটা ডিভিডেন্ট দেবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। কিন্তু দেশের মহিলা ক্রিকেট যে এক ধাক্কায় অনেকগুলো ধাপ এগিয়ে গেল তা বলাই বাহুল্য।

Mailing List