পুরুলিয়ার ঝালদায় নিহত কাউন্সিলারের শেষকৃত্যে জনজোয়ার, সিবিআই তদন্তের দাবি পরিবারের

পুরুলিয়ার ঝালদায় নিহত কাউন্সিলারের শেষকৃত্যে জনজোয়ার, সিবিআই তদন্তের দাবি পরিবারের
14 Mar 2022, 09:16 PM

পুরুলিয়ার ঝালদায় নিহত কাউন্সিলারের শেষকৃত্যে জনজোয়ার, সিবিআই তদন্তের দাবি পরিবারের

 

আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, পুরুলিয়া

পুরুলিয়ার ঝালদায় দলিয় কাউন্সিলারের খুনের ঘটনায় সরাসরি তৃণমূল এবং পুলিশকে দায়ী করলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী। পরিবারকে সমবেদনা জানাতে রাঁচি হয়ে ঝালদায় আসেন তিনি। এদিন তার সামনে কান্নায় ভেঙে পড়েন তপনবাবুর পরিবারের সদস্যরা। তপন কান্দুকে খুন করা হয়েছে সংখ্যা যাতে তৃণমূলের পক্ষে থাকে তাই, এ কথাই দাবী করেন তিনি। উল্লেখ্য এবার ঝালদা পৌরসভায় নির্বাচনে ১২টি আসনের মধ্যে ৫ টি করে পায় কংগ্রেস ও তৃণমূল। দুটি আসন পায় নির্দল। এই দুই নির্দলই কংগ্রেসকে সমর্থন করতো বলে দাবী করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি।

 

তিনি জানান শাসক দল বোর্ড দখল করার জন্য এই হত্যা ঘটিয়েছে। এদিন সিবিআই তদন্তের দাবী করেন জেলা কংগ্রেস সভাপতি নেপাল মাহাতো নিজেও। এদিন মৃতের স্ত্রী পূর্নিমা দেবী অভিযোগ করে বলেন, দিন কয়েক আগে ঝালদার আই সি সঞ্জিব ঘোষ তার স্বামীকে হুমকি দেয় তৃণমূলে যোগ দেওয়ানোর জন্য। স্থানীয় তৃণমুল নেতা সুরেশ আগারওয়াল, বিশ্বনাথ কান্দু, নরেন কান্দু, শ্যাম কান্দু, দিপক কান্দু এবং ভীম তেওয়াড়ি হত্যাকান্ডের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত রয়েছে বলে দাবী করেন তিনি। তাদের শাস্তির দাবি করেন তিনি। মৃতের কন্যা দিপা কান্দু বলেন ভোটে জেতার জন্য তাকে খুন করা হয়েছে। কারন এবার তাকেই চেয়ারম্যান করা হতো।

 

পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রসঙ্গে জেলা পুলিশ সুপার এস সেলভামুরুগান বলেন যে কোন প্রমাণ হাজির করা যেতে পারে। পুলিশ তদন্ত করে উপযুক্ত ব্যাবস্থা নেবে। এদিকে ঘটনার পর চব্বিশ ঘন্টা পার হয়ে গেলেও ঝালদার ২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তপন কান্দুর খুনিদের কোন হদিশ করতে পারলো না পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পুলিশ কোন সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করতে পারেনি। কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান জেলা পুলিশ সুপার এস সেলভামুরুগান। তিনি বলেন তদন্ত চলছে নিজের গতিতে। সব দিক খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যদিও এ নিয়ে প্রচণ্ড ক্ষোভ প্রকাশ করেন মৃতের আত্মিয় পরিজনরা।

 

উল্লেখ্য সান্ধ্য ভ্রমণ করার সময় রবিবার সন্ধ্যায় গুলিবিদ্ধ হন তপনবাবু। ঝালদা বাঘমুণ্ডী রোডে বাইকে করে তিনজন দুষ্কৃতি এসে খুব কাছ থেকে তাঁকে গুলি করে বাঘমুণ্ডীর দিকে পালিয়ে যায়। মাথায় গুলি লেগে লুটিয়ে পড়েন তিনি। রাঁচিতে বড় হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও মৃত্যু হয় তাঁর। এই ঘটনার পরই ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে যায় ঝালদা এলাকা জুড়ে। জেলা কংগ্রেসের তরফ থেকে মংগলবার ১২ ঘণ্টার পুরুলিয়া বন্ধের ডাক দেওয়া হয়। এর থেকে অবশ্য ছাড় দেওয়া হয় মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের। সোমবার বিকেলে ঝালদা শহরে নিহত তপন কান্দুর দেহ আসার পর মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী, জেলা সভাপতি নেপাল মাহাতো সহ কংগ্রেস নেতৃত্ব। বহু সাধারণ মানুষও শ্রদ্ধা জানান তাদের নেতাকে। এরপর মৌন মিছিল করে দেহ নিয়ে যাওয়া হয় তার আবাসে। এলাকায় অতি জনপ্রিয় চার বারের কাউন্সিলার তপন বাবুর দেহ দেখে কেঁদে ফেলেন বহু মহিলা। শেষ যাত্রায় সামিল হন কয়েক হাজার মানুষ।

 

গতকাল রবিবার বিকেলে দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া গুলিতে গুরুতর আহত হন ঝালদা পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের জয়ী কংগ্রেস প্রার্থী তপন কান্দু । গুলি লাগে তপন কান্দুর মাথায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্থানীয়দের সহায়তায় তপন কান্দুকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে রাঁচির একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তাঁর । পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে গুলি এবং বন্ধুকের ম্যাগাজিন উদ্ধার করেছে । গুলিকাণ্ডের ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত তার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

 

প্রসঙ্গত, সদ্য পৌর নির্বাচনে ১২ আসন বিশিষ্ট ঝালদা পৌরসভায় ৫ টি করে ওয়ার্ডে জেতে তৃণমূল ও কংগ্রেস । ২ টি ওয়ার্ডে জয়লাভ করে নির্দল প্রার্থীরা। ত্রিশঙ্কু অবস্থায় ঝুলে থাকে ঝালদা পৌরসভার ভাগ্য। ফলঘোষণার দিনই এক জয়ী নির্দল প্রার্থী তৃণমূলে যোগদান করলে তৃণমূলের জয়ী ওয়ার্ড সংখ্যা দাঁড়ায় ৬ -এ। যদিও আরেকজন জয়ী নির্দল প্রার্থীকে তৃণমূল দল থেকে বহিস্কার করায় বোর্ড গঠনে বিপাকে পড়ে তৃণমূল । অনিশ্চিয়তা দেখা দেয় ঝালদা পৌরসভায়। বোর্ড গড়ার চাবিকাঠি থাকে এক জয়ী নির্দল প্রার্থীর হাতে। ঝালদা পৌরসভা দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠে তৃণমূল ও কংগ্রেস উভয় দলই। তারপরই গুলিকাণ্ডের ঘটনায় কংগ্রেস প্রার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় ঝালদায় শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানোতর।

Mailing List