অন্তরিন / দশম পর্ব (গল্প)

অন্তরিন / দশম পর্ব (গল্প)
20 Mar 2022, 01:30 PM

অন্তরিন / দশম পর্ব (গল্প)

 

সুপ্রিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

 

 

 ঘুম থেকে উঠে একটা আড়ষ্টতা কাজ করে, এটা কিন্তু কম-বেশ সব মানুষের জন্যই প্রযোজ্য। কিন্তু এইটা আজ অবধি সুন্দরকে প্রভাবিত করতে পারে নি। 

ঘুম যদি কারো পরিপূর্ণ হয়, তবে আড়ষ্টতা কার্যকর হতে পারে না।

--- হ্যালো, কে বলছেন?

--- আমি নবনীতা বলছি  --- হ্যালো  --- শুনতে পাচ্ছ  ?

--- বিলক্ষণ পাচ্ছি। বল প্রিয়ে --- 'আমি কান পেতে রই ' ..

সাগরপারের দূরভাষ -------।

 হালকা চটুল পরিহাস স্বাভাবিক ভাবেই ফুটে ওঠে ওর গলায়।

--- কাল সারা দিন তোমার ফোন কেন পাইনি নবু? আমি চিন্তায় ছিলাম। 'কাল সারারাত চোখে ঘুম ছিল না/ তোমার ভাবনা যেন ঘুমাতে দিল না, দিল না, দিল না  ----- '

গুনগুনিয়ে ধনঞ্জয় ভট্টাচার্যের গানটা দরাজ গলায় গেয়ে উঠল।

--- হ্যাঁ, বুঝতে পারছি, একা একা বাড়িতে বেশ আনন্দেই আছো --- ।

--- তা আর হচ্ছে কোথায় সম্রাজ্ঞী! একা এই প্রাসাদে আমি একাকীত্বের জ্বালায় হাঁপিয়ে উঠেছি।  আপনার কি একবারও এই মুকুট-হীন সম্রাটের কথা মনে পড়ে না?   'কতদিন দেখিনি তোমায় / তবু মনে পড়ে তব  মুখখানি/ স্মৃতির মুকুরে মম,/ আজ তবু ছায়া পরে রাণী / কতদিন তুমি নাই কাছে, / তবু হৃদয়ের তৃষ্ণা জেগে আছে ---' 

--- হ্যাঁ,  হ্যাঁ--- ভালোবাসা একেবারে উপচে পড়ছে,  বুঝতে পারছি। দূরে থাকাটাই ভালো, তবুও তাতে ভালোবাসার স্বাদের ছিটেফোঁটা উপলব্ধি করা যায়!

 তা আমার অবর্তমানে রেকর্ডের ঝুলি নিয়ে বসে আছো মনে হচ্ছে---? বুড়ো বয়সে,  আদিখ্যেতা। 

গলায় এবার নবনীতার পরিহাসের রেশ। তারপর খুশির ঢেউ তুলে বলল,

--- তুমি আবার দাদু হয়েছ। এবার নাতনী, বুঝেছ---

--- তাই !! কখন? রিম্পি ভালো আছে তো? 

--- এই তো, নার্সিংহোম থেকে সৌম্য এইমাত্র জানাল। মা, মেয়ে দুজনেই ভালো আছে। তোমার ছেলে বলল, বাপিকে খবরটা দিয়ে দাও।

অভিমানী কন্ঠে সুন্দর বলল,

--- ওঃ, তাহলে ছেলে না বললে মা ---  তার স্বামীকে সুখবরটা জানাত না বুঝি?

--- ওমনি অভিমান হলো বাবুর! ডাক্তারবাবু, শুনুন তবে, এবার আমার এখানকার কাজ শেষ। এবার ফেরার পালা। 

--- কবে আসছ?

--- রিম্পি বাড়ি আসুক, কয়েকটা দিন যাক, তার মধ্যে ভারতে লক্ ডাউনের ব্যাপারটা মিটুক।

--- কি জানি,  কবে মিটবে  --- বুঝতে পারছিনা। আগামী দিনে জানতে পারব। তবে যা অবস্থা, পুরোটাই না ওঠাই উচিত। ক'দিনের ছাড় দিয়ে,  আবার লক্ ডাউন দ্বিতীয় পর্ব হবে বোধহয়।

--- চা খেয়েছ?

--- কৈ আর তার সুযোগ পেলাম, ঘুম থেকে উঠতে না উঠতেই রাণীসাহিবার ফোন।  এবার নীচে গিয়ে চা বসিয়ে দেব।

--- যাও, লাঞ্চের পরে, বিকেলের দিকে আবার ফোন করব।

--- ঠিক আছে। সাবধানে থেকো। 

উত্তরে হ্যাঁ বলে,  লাইনটা ছেড়ে দিল নবনীতা।

নেপুর মার কথাটা ইচ্ছে করেই আর তাকে জানালো না।

খুশির খবরের মাঝে আর ঐ খবরটা বলার কোনো অবকাশ পেলো না। আসলে কি হয়, সব কথা, সব পরিস্থিতিতে বলা যায় না।

আস্তে আস্তে সিঁড়ি দিয়ে নামতে নামতে সারা দিনের কাজগুলো একবার ছকে নিতে লাগল।

 

  (ক্রমশঃ)

Mailing List