পঞ্চায়েতে বিজেপির প্রধান নির্বাচন ঘিরে দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি পুরুলিয়ায়

পঞ্চায়েতে বিজেপির প্রধান নির্বাচন ঘিরে দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি পুরুলিয়ায়
18 Feb 2021, 05:41 PM

ঞ্চায়েতে বিজেপির প্রধান নির্বাচন ঘিরে দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি পুরুলিয়ায়

 

আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, পুরুলিয়া

 

বৃহস্পতিবার পুরুলিয়ার রঘুনাথপুর ২ ব্লকের মঙ্গলদা-মৌতড় গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান গঠন ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হল। বিজেপির প্রধান নির্বাচিত হওয়ার পর দলেরই নেতা ও কর্মীরা নিজেদের মধ্যে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ল। দলীয় কর্মী সমর্থকেরাই নিগ্রহ করল পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যকেও।

 

এই গ্রাম পঞ্চায়েত বরাবরই নজরে রয়েছে জেলায়। পঞ্চায়েত নির্বাচনে এই মঙ্গলদা-মৌতড় গ্রাম পঞ্চায়েতের ১২টি আসনের মধ্যে ৯টি আসন পায় বিজেপি, ২ টি আসন পায় তৃণমূল ও একটি আসনে সিপিএম জয়লাভ করেছিল। পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর যখন  এই পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন হয় তখন বিস্তর ঝামেলা হয়। অভিযোগ উঠেছিল বহিরাগতরা ঢুকে পড়ে সভা ভন্ডুল করে দেয়। যদিও সে সময় প্রশাসন দাবি করে, বোর্ড গঠন হয়েছে,তৃণমূলের এক সদস্যকে প্রধান নির্বাচিত করা হয়েছিল। এরপরই আদালতের দ্বারস্থ হয় বিজেপি। ইতিমধ্যে প্রধানের পরিবর্তে প্রশাসক দিয়ে পঞ্চায়েত পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল প্রশাসন। সেইমতো প্রশাসক দিয়ে পঞ্চায়েতটি পরিচালনা হচ্ছিল। কিন্তু বিজেপির দায়ের করা আদালতের মামলার পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক নির্দেশ দিয়েছিলেন যে, তিন সপ্তাহের মধ্যে প্রধান নির্বাচন করতে হবে। সেইমত বৃহস্পতিবার ছিল প্রধান গঠনের দিন। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেল যে কার্যত প্রধান নির্বাচনকে কেন্দ্র করে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ল বিজেপির কর্মী সমর্থকেরাই নিজেরাই।

এদিন প্রধান গঠনের জন্য বিজেপির নয় জনই সদস্য সভায় উপস্থিত হয়েছিলেন। তবে তৃণমূলের দুই সদস্য ও সিপিএমের এক সদস্য এদিনের সভায় অনুপস্থিত ছিলেন। এদিন সভাকক্ষ থেকে সদস্যরা বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানান,বিজেপির রুকনি গ্রামের বাসিন্দা বলরাম ধীবর প্রধান নির্বাচিত হয়েছেন আর বাঁন্দা গ্রামের বাসিন্দা মুক্তা বাউরি  উপপ্রধান নির্বাচিত হয়েছেন। এরপরই দলের কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এমনকি হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে দলের নেতা ও কর্মীরা নিজেরাই। রঘুনাথপুর ২ ব্লকের পঞ্চায়েত সমিতির বিজেপির সদস্য কালীচরণ বাউরি দলেরই কর্মী ও সমর্থকদের হাতে প্রহৃত হন বলে অভিযোগ। তাঁর শরীরের পরিহিত গেঞ্জি ছিঁড়ে ফেলে তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয়। দলীয় কর্মী ও সমর্থকরা জানান,দলীয় ভাবে মঙ্গলদা এক নম্বর বুথ থেকে জয়ী বিজেপি সদস্য বনডাঙ্গার বাসিন্দা দীনেশ মুর্মু কে প্রধান নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও তা কেন কার্ষকর করা হল না। তারই পরিপ্রেক্ষিতে এদিন দলেরই কর্মী ও সমর্থকরা পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য কালীচরণ বাউরি সহ আরো কয়েকজন নেতা কর্মীর উপর চড়াও হয়ে তাদের নিগৃহীত করে।

তবে এদিন প্রশাসন জানিয়েছেন মঙ্গলদা-মৌতড় গ্রাম পঞ্চায়েতে বিজেপির প্রধান,উপপ্রধান নির্বাচিত হয়েছে।

 

আদালতের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে এদিন এই পঞ্চায়েতে বোর্ড গঠন করার পর বিজেপির বিজয় উৎসব পালন করার কথা ছিল। সেইমত গেরুয়া আবির,সাউন্ড বক্স সবই আনা হয়েছিল। কিন্তু প্রধান নির্বাচন দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে না হওয়ার কারণে দলীয় কর্মী ও সমর্থকরা নিজেরাই হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ল। হল না বিজয় উৎসব পালন।

ads

Mailing List