কেশপুরে বামপন্থীদের কাছেও ভোট ভিক্ষা চাইলেন শুভেন্দু অধিকারী  

কেশপুরে বামপন্থীদের কাছেও ভোট ভিক্ষা চাইলেন শুভেন্দু অধিকারী   
21 Jan 2021, 06:24 PM

কেশপুরে বামপন্থীদের কাছেও ভোট ভিক্ষা চাইলেন শুভেন্দু অধিকারী

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন, আনন্দপুর: একমাত্র বিজেপিই পারবে তৃণমূল কংগ্রেসকে ক্ষমতা থেকে সরাতে। তাই তৃণমূল কংগ্রেসকে ঝেঁটিয়ে বিদায় করার ডাক দিলেন তৃণমূল থেকে সদ্য বিজেপিতে যাওয়া শুভেন্দু অধিকারী। আর এ ক্ষেত্রে বামফ্রন্টেরও যে সহযোগিতা জরুরি তা জানালেন তিনি। তাই এবারের নির্বাচনে বামফ্রন্ট সমর্থকদের কাছেও ভোট প্রার্থনা করলেন শুভেন্দু অধিকারী।

 

আজ, বৃহস্পতিবার একসময়ের 'লালাঝান্ডার শক্ত ঘাঁটি' কেশপুরের আনন্দপুরে সভা ছিল বিজেপির। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়েই সিপিএম কর্মী সমর্থকদের প্রতি এই আহ্বান জানিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী।  

 

বৃহস্পতিবার আনন্দপুরের সভা থেকে কেশপুরের মাটিকে প্রণাম জানিয়ে, তৃণমূল কংগ্রেসকে তীব্র আক্রমণ করে শুভেন্দু বলেন, "অনেক আশা নিয়ে এখানে মানুষ পরিবর্তন এনেছিলেন। কোনও পরিবর্তন হয়েছে? হয়নি। এখানকার বিধায়ক, সাংসদদের দেখা পাওয়া যায়? তারা ভোট নিয়ে ভোকাট্টা হয়ে গিয়েছে। তোমার দেখা নাই রে তোমার দেখা নাই।" তৃণমূল কংগ্রেসের লোকজন কিভাবে সব কাজের জন্য কাটমানি নিচ্ছে, কমিশন নিচ্ছে, তার উল্লেখ করে বলেন ,"এদের ঝেঁটিয়ে বিদায় করতে না পারলে উপায় নেই। এদের তাড়াতে হবে। আমরা পারব তাড়াতে।" এই কথা বলেই, কেশপুরে যে এখনও সিপিএমের ভালো সমর্থক আছে তার উল্লেখ করেন শুভেন্দু অধিকারী। বলেন,  "এখানে অনেকেই আছেন, যাঁরা সিপিএম করেন। তাঁরা করুন, তাঁদের দল। কিন্তু বিধানসভায় ভোট দিন বিজেপিকে। তারপর আবার সিপিএম করবেন। তাহলেই ন্যায় পাবেন, পঞ্চায়েতে ভোট হবে। বিধানসভা ভোটের পর কংগ্রেস-সিপিএম করুন। এখন বিজেপি করতে হবে। আমরাই পারব তৃণমূলকে সরাতে।"

 

এর আগেও নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে, তৃণমূল কংগ্রেসকে ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া শুভেন্দু অধিকারী, বামপন্থী ও কংগ্রেসীদের উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন, 'এবার বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে ভোট দিন। বিজেপিকে ভোট দিলে এলাকায় সুষ্ঠভাবে পঞ্চায়েত ও পুরসভা নির্বাচন করা যাবে। তৃণমূল এখানে পঞ্চায়েত ও পুরসভা নির্বাচন করতে দেয়নি।' এবার কেশপুরের জনসভা থেকেও সেই একই কথা শোনা গেল তাঁর গলায়। 

 

সিপিএম নন্দীগ্রাম, নেতাই, বেনাচাপড়া, গড়বেতা এলাকায় গণহত্যার মতো নিন্দনীয় কাজ  যেমন করেছিল তেমনই অনেকে ভালো কাজ করেছিল বলেও উল্লেখ করেন। শুভেন্দু বলেন, "বামফ্রন্ট আমলে অনেক ভালো কাজ হয়েছে। প্রতি বছর এসএসসি পরীক্ষা ও চাকরিতে নিয়োগ হত। পঞ্চায়েত গঠন করা হয় জ্যোতি বসুর আমলে। ভূমি সংস্কার তাদের করা। লক্ষ্মণ শেঠেরা হার্মাদ হলেও বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য সৎ মানুষ ।"

 

পুলিশকে কাজে লাগিয়ে এখানে তৃণমূল কংগ্রেস ভোট লুট করে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বলেন, " কেশপুরে কোনও পরিবর্তন হয়নি। এখানে একটা প্রবাদ আছে, পুলিশ যার সঙ্গে থাকে কেশপুর তার হাতে থাকে।"

 

লোকসভা নির্বাচনের সময় কেশপুর এলাকায় ভোট লুট করেই ঘাটাল আসনে তৃণমূল কংগ্রেস জিতেছে এবং কিভাবে বিরোধী, সিপিএমের লোকজনকে পঞ্চায়েত নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে দেওয়া হয়নি তার উল্লেখ করে বলেন, "আমরা চাই গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হোক। গণতন্ত্র থাকা উচিত।  লড়বে সবাই, জিতবে একজন। এখানে বামপন্থী যারা আছেন তারা ভোটটা এবার বিজেপিকে দিন। পঞ্চায়েত নির্বাচনে তো মনোনয়ন পত্র জমা দিতে পারেননি। বিজেপি ক্ষমতায় এলে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে পারবেন। যার যেখানে ইচ্ছা ভোট দিতে পারবেন ।"

 

ভোটের আগে তৃণমূল কংগ্রেসের লোকজন ভয় দেখাচ্ছে বলে অভিযোগ করে বলেন, "ওরা ভিতুর দল। নিকৃষ্ট মানের পচা মাল। এদের ভয় পাওয়ার কোন কারণ নেই। ওরা চোখ দেখালে আঙুল দেখাতে হবে। "

Mailing List