২০২৩ সালেই 'সবার জন্য পানীয় জল’, বাদ যাবে বস্তিও, বরাদ্দ ৩ হাজার কোটি

২০২৩ সালেই 'সবার জন্য পানীয় জল’, বাদ যাবে বস্তিও, বরাদ্দ ৩ হাজার কোটি
26 Jan 2022, 02:40 PM

২০২৩ সালেই 'সবার জন্য পানীয় জল, বাদ যাবে বস্তিও, বরাদ্দ ৩ হাজার কোটি

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: 'সবার জন্য পানীয় জল’।‌ এই লক্ষ্যে বিশেষ উদ্যোগ নিল পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তর। ঠিক হয়েছে ২০২৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর, অর্থাৎ ২ বছরের মধ্যে রাজ্যের সমস্ত শহরের প্রতিটি বাড়িতে পানীয় জল সরবরাহ করা হবে। এমনকী সব বস্তির প্রতিটি ঘরে দেওয়া হবে পানীয় জলের সংযোগ।

 

নবান্ন সুত্রের খবর, এই প্রকল্পের জন্য ধার্য হয়েছে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা। রাজ্যে ১২২ টি পুরনিগম ও ৬ টি পুরসভা আছে। সব মিলিয়ে প্রায় ৪২ লক্ষ বাড়ি রয়েছে। ৭৫ শতাংশ বাড়িতেই পানীয় জলের ব্যবস্থা রয়েছে। বাকি প্রায় সাড়ে ১০ লক্ষ বাড়ি। এছাড়াও কয়েক শ বস্তি রয়েছে। সেখানকার ঘরে ঘরে পানীয় জলের ব্যবস্থা করা হবে। এখন বেশিরভাগ বস্তিতেই একটি বা দুটি করে পানীয় জলের সংযোগ রয়েছে। সকাল বিকেল পানীয় জলের জন্য লম্বা লাইন দিতে হয় বস্তি বাসিদের জন্য। এই পরিস্থিতি আর দেখতে চায় না রাজ্য সরকার। কাজের জন্য মাইক্রো প্ল্যানিং শুরু হয়ে গেছে। জলের সংযোগ দিতে লাগবে ৭৫০ কোটি টাকা।

 

পাশাপাশি সব বাড়িতে জল দিতে গেলে জলাধারগুলির ধারণ ক্ষমতাও বাড়াতে হবে। সেই সঙ্গে ভূ গর্ভে জলধারণ ক্ষমতাও বাড়াতে হবে। এর জন্য বৃষ্টির জল ধরে রাখার উদ্যোগ নিচ্ছে পুর দপ্তর। ঠিক করা হয়েছে, পুরসভা এবং পুরনিগমের এখনও যেসব পুকুর সংস্কার হয়নি তা সংস্কার করে বৃষ্টির জল ধরে রাখার ক্ষমতা বাড়ানো হবে। এছাড়াও ভূ গর্ভস্থ জলস্তর কীভাবে বাড়ানো যায়, তা নিয়েও চিন্তা ভাবনা শুরু হয়েছে। পানীয় জল প্রকল্পে জলাধারগুলিকে সংস্কার করা হবে। প্রয়োজনে নতুন নতুন জলাধার তৈরি করা হবে। এই কাজের জন্য ২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা খরচ হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এছাড়া রাজ্যের তিনটি শিল্প নগরীর প্রতিটি বাড়িতে পানীয় জলের ব্যবস্থা করা হবে। এই তিনটি শিল্প নগরী হলো নবদিগন্ত, বানতলা অর্থাৎ সেক্টর–৬ এবং অণ্ডালের গোল্ডেন সিটি।

ads

Mailing List