গোলাপ তো ভালোবাসেন, কাটিং পদ্ধতিতে কিভাবে উন্নত গাছ তৈরি করবেন জানেন কী? জেনে নিন সহজ পদ্ধতি

গোলাপ তো ভালোবাসেন, কাটিং পদ্ধতিতে কিভাবে উন্নত গাছ তৈরি করবেন জানেন কী? জেনে নিন সহজ পদ্ধতি
15 Mar 2022, 02:00 PM

গোলাপ তো ভালোবাসেন, কাটিং পদ্ধতিতে কিভাবে উন্নত গাছ তৈরি করবেন জানেন কী? জেনে নিন সহজ পদ্ধতি

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: গোলাপ গাছের কাটিং থেকে চারা তৈরি করলে তা কিন্তু ভালো ফুল দেয়। কিন্তু অনেকের মনে হতে পারে, এটি বড্ড কঠিন কাজ। কিন্তু তা একেবারেই নয়। অতি সহজেই কাটিং থেকে চারা তৈরি করা যায়। তবে তার জন্য কয়েকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। সেগুলি জেনে নিন -

 

সফটউড গোলাপের কাটিং: বসন্ত কালের শেষের দিকে বা গ্রীষ্মের শুরুতে নেওয়া কাণ্ডের সবচেয়ে নমনীয় অংশের কাটিং। এগুলি শিকড় করা সবচেয়ে সহজ এবং ফুলের সমস্ত পাপড়ি ঝরে গেলে ফুলের ঠিক নীচে থেকে এটি নেওয়া হয়।


হাফ-হার্ডউড গোলাপের কাটিং: যখন নতুন ডালপালা আংশিক পরিপক্ক হবে তখন কাটিং করতে হবে। তখনও কান্ড সবুজ থাকলেও তা ততটা নমনীয় থাকবে না। এই কাটিং গ্রীষ্মের শেষের দিকে বা শরতের শুরুতে নেওয়া হয়।

হার্ডউড গোলাপের কাটিং: এগুলি কান্ডের সবচেয়ে পরিপক্ক অংশ থেকে নেওয়া হয়। কাটিংগুলি শরতের শেষের দিকে বা শীতের শুরুতে নেওয়া হয়। যা থেকে শিকড় করা সবচেয়ে কঠিন। রুট গঠন প্রক্রিয়ায় সাহায্য করার জন্য তাদের রুটে হরমোনের প্রয়োজন পড়ে।

 আপনার পছন্দের কাটিং করার সঙ্গে সঙ্গেই রোপনের জন্য মাটিও তৈরি করতে হবে। যেখানে কাটিং লাগাবেন। কারণ, কাটিং নেওয়ার সাথে সাথেই কাটিং রোপণ করতে হয়। কাটিং এ দ্রুত শেকড় জন্মানোর জন্য কয়েকটি বিষয়ে নজর দিতে হবে। সেগুলি হল-  প্রথমেই সরাসরি মাটিতে না লাগানো উচিত। প্রথমে মাটির মিশ্রন তৈরি করুন। সেটি ঝুরঝুরে ও আর্দ্র থাকবে। কিন্তু কাদা বা ভিজে থাকবে না। ৪-৬ ইঞ্চি গভীরতাযুক্ত পাত্রে সেই মাটি রাখুন। সেখানে কাটিং পুঁতে দিন। যেখানে পাত্রটি রাখবেন, কে?আল করতে হবে যাতে সরাসরি সূর্যালোক না আসে।   কিভাবে কাটিং করবেন জেনে নিন। সাধারণ কাটার বা কাঁচিতেই করা যায়। তবে খেয়াল রাখতে হবে ৪৫ ডিগ্রি কোণে কাটতে হবে। এবং অবশ্যই কাটা অংশটি দশ ইঞ্চি লম্বা হওয়া দরকার।  কান্ডে থাকা কোনও ফুল বা ফুলের কুঁড়ি থাকলে তা সাবধানে চিমটি দিয়ে বা কাঁচি দিয়ে কেটে ফেলুন। শুধুমাত্র উপরের দুটি জোড়া পাতা রাখতে হবে। শিকড়ের জন্য স্টেম প্রস্তুত করতে হবে। পাতার নোডের ঠিক নীচে (১ সেমি) কান্ডের উপর একটি তাজা কাটা তৈরি করতে হবে এবং নোড পর্যন্ত কান্ডটিকে অনুদৈর্ঘ্যভাবে চার ভাগে ভাগ করতে হবে।নরম কাটিং হলে হরমোন পাউডার না দিয়েই রুট করা যায়। তবে হরমোন ব্যবহারে সাফল্যের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। রুটিং হরমোন প্রয়োগ করতে, কাটা প্রান্তটি সামান্য আর্দ্র করে রুটিং হরমোনে ডুবিয়ে দিতে হবে। 

কাটিং রোপণ: ৬ ইঞ্চি গভীরতা যুক্ত একটি ছোট পাত্রের মাঝখানে কাটিং রোপণ করতে হবে। চারপাশে মাটি চেপে দিতে হবে।আর্দ্রতা ধরে রাখতে একটি স্বচ্ছ প্লাস্টিকের ব্যাগ দিয়ে পাত্রটিকে আলগাভাবে ঢেকে রাখলে ভালো। শিকড় না আসা পর্যন্ত মাটি আর্দ্র রাখতে হবে। শিকড় আসার পর বড় পাত্রে বা মাটিতে রোপন করা যাবে। তখন ধীরে ধীরে নতুন পাতাও আসতে থাকবে।  

 

যে কয়েকটি বিষয়ে নজর দিতে হবে-

গাছের প্রতিদিন কমপক্ষে 6-8 ঘন্টা সূর্যালোক প্রয়োজন।গোলাপ বসন্ত বা গ্রীষ্মের শেষ দিকে রোপণ করা ভালো।গোলাপ অনেক গভীর পর্যন্ত শিকড় পাঠায়। তাই পাত্রটি যত লম্বা হবে তত ভাল।গোলাপ গাছকে ফসফরাস সমৃদ্ধ সার দিতে হবে। সুষম সারও প্রয়োজন। পেঁয়াজের খোসার স্লারিও একটি ভালো সার। মাটি সর্বদা আর্দ্র রাখতে হবে।

ছাঁটাই: মরা ফুল ও শাখা ছাঁটাই করতে হবে। প্রতি বসন্তে ভারী ছাঁটাই এবং সারা বছর হালকা ছাঁটাই জরুরি। ফুলের সময় শাখা প্রসারিত থাকলে বেশি কুঁড়ি আসে।  

রোগপোকা: রোগপোকা নিয়ন্ত্রণ করতে প্রতি ১৫ থেকে ২০ দিন অন্তর নিমের তেল দিয়ে গোলাপ গাছে স্প্রে করতে হবে। যে গোলাপ ফুল ফোটার সাথে সাথে কাটা ফুলের জন্য সংগ্রহ করা হয় 

 

Mailing List