ঘি নিয়ে রইলো কিছু স্বাস্থ্যকর টিপস

ঘি নিয়ে রইলো কিছু স্বাস্থ্যকর টিপস
20 May 2022, 07:45 PM

ঘি নিয়ে রইলো কিছু স্বাস্থ্যকর টিপস

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: ঘি-এর সঙ্গে বাঙালির সম্পর্ক বহু যুগের। সুস্বাদু পদ রাঁধতে সবার আগে দরকার ভালো মানের ঘি। দুধের মাঠা তুলে, ঘরে জ্বাল দিয়ে বানানো হয় ঘি। এই ঘি আমরা অনেকেই রান্নায় ব্যবহার করে থাকি। রান্নায় ১ চামচ ঘি দিলে পুরো স্বাদটাই বদলে যায়। অনেকের মতে ঘি ওজন বৃদ্ধির প্রধান কারণ। আবার অনেকে বলে, ঘি-তে থাকা একাধিক পুষ্টিগুণ শরীর সুস্থ রাখে। তবে, ঘি দিয়ে রাঁধা খাবার খাওয়া বিষ খাওয়ার সমান। কিন্তু, বিশেষজ্ঞের মতে ঘি দিয়ে রান্না করা মোটেও স্বাস্থ্যকর নয়। জেনে নিন ঘি দিয়ে রাঁধা পদ খেলে কী কী ক্ষতি হতে পারে।

ঘিতে থাকে স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড। তাই ঘি গরম করলে রান্নায় খারাপ প্রভাপ পড়ে। এর থেকেই কোলেস্টেরল, হার্টের রোগ, হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোক হয়ে থাকে। জানা গিয়েছে, ১ চামচ ঘিতে ১৫ গ্রাম ফ্যাট থাকে। এর মধ্যে ৯ গ্রামই হল স্যাচুরেটেড ফ্যাট।

তেমনই কড়াইয়ে ঘি দেওয়ার পর তা গলে গেলে আমরা ফোরন দিয়ে থাকি। কিন্তু, এভাবে রান্না করলে এমন কিছু উপাদান তৈরি হয় যা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। ঘি গরম করতে তাপমাত্রা ১৮০ ডিগ্রির বেশি রাখা উচিত নয়।

অনেকে খাওয়ার আগে ঘি গরম করেন। এমন কাজ করবেন না। ঘরের তাপমাত্রায় ঘি খাওয়া জরুরি। সেই ঘি-ই খান। তা না হলে শরীরের ক্ষতি হতে পারে। তাই বেশি আঁচে রান্না করার অভ্যেস থাকলে, তাহলে ঘি নয় সাদা তেল দিয়ে রান্না করুন।

তবে, ঘি খাওয়ার উপকারিতা রয়েছে বিস্তর। জানা গিয়েছে, ঘি হজম ক্ষমতা বৃদ্ধি ঘটায়। তেমনই ঘি খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। সকালে ১ চামচ ঘি খান খালি পেটে। উপকার পাবেন। সর্দি-কাশি উপসম করতে ও মাইগ্রেনের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে ঘি খেতে পারেন। ব্যথা উপসম করতেও ঘি খেতে পারেন। তেমনই ঘি রূপচর্চায়ও ব্যবহৃত হয়। ত্বকের যত্ন নিতে ঘি দিয়ে মাসাজ করা হয়ে থাকে। বলিরেখা দূর করতে এটি বেশ উপকারী। অন্যদিকে, চুল পড়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ও খুশকি দূর করতে ঘি দিয়ে তৈরি ব্যবহারের প্রচলন আছে।

ads

Mailing List