আবির্ভাব ভট্টাচার্যের চারটি কবিতা

আবির্ভাব ভট্টাচার্যের চারটি কবিতা
05 Jul 2020, 11:42 AM

আবির্ভাব ভট্টাচার্যের চারটি কবিতা

 

অবকাশ

 

অলীক আলস্য দিয়ে পাত্রে সাজিয়েছি দিন

শিরায় সুখের বৃষ্টি নামবে ব'লে                    

এখন রক্তে ছোটে ত্রেতা যুগের সব হরিণ!

শান্ত ঠোঁটের পাশে চিরকাল যুদ্ধক্ষেত্র রাখা

এই সূত্র সবাই আজ জানে-

ঠোঁট ও পানীয়বস্তু উভয়েই পরস্পর একা!

পাত্রের ওপর দিয়ে বয়ে যায় আশ্চর্য ঘূর্ণি

মনে হয়, বুঝি ডুবে যাবো-

পিঠ থেকে খুলে যাবে মায়াবী তূনীর!

    ..........

 

জিরাফের দিনলিপি

 

দেখিনা, সেভাবে দেখিনা

জলের মন্ত্রে আঁকা গোপনীয় ইঙ্গিত-

তুমি পড়ে যাও

আমি তা দেখতে পাইনা।

শুনিনা, বাতাস দখিনা

তোমার হাওয়ায় কী সেইসব সঙ্গীত-

শ্বাসবায়ু ছাড়া

গান ব'লে কিছু বুঝিনা।

বলিনা, কথাই বলিনা

কী হবে কথায়, নতমস্তকে জল খাই-

তুমি বলে যাও

আমি তো জিরাফ, তাই না?

 ...........

 

কুড়িয়ে পাওয়া কথা

 

যত্নের অভাবে ঘুণ ধরে

কাঠের আসবাবের মত-

যাবতীয় স্থির সম্পর্কে।

এই যে অমোঘ নিয়ম-

সেই সূত্র সকলেই জানে-

মাথা তোলার অনভ্যাসে

নুইয়ে পড়ে মেরুদন্ড- ক্লীব!

জীবনবিজ্ঞান বই তখন গীতা-

কোরআন-বাইবেল

ওখানেই লেখা থাকে

মানুষ মেরুদন্ডী জীব!

ভালোবাসার কাছে নতজানু হওয়ার কথা

কাব্য-কবিতা-লোকগাথা-

সনেটেও গাঁথা থাকে

অথচ দুনিয়া দেখছে-

নতজানু দম্ভ নিয়ে আশ্চর্য হননদৃশ্য

হত্যা ও ভালোবাসা যেখানে একটি বিন্দুতে মেশে!

  .............................

 

আদর

 

ভাঙছো যখন আমায়

তুমি এভাবে ভেঙো না

অর্ধেক চাঁদের মতন।

ভেবে দেখো আধখানা

কিভাবে বাঁচবো শুধু

ব্যথার অনুরণন নিয়ে।

তার চেয়ে ভালো

তুমি ওই দু'টি হাত দিয়ে

ছুঁয়ে দাও আধভাঙা

বুকের উপকূল।

এজীবন আমি জানি

অলীক রঙ্গন ফুল

আর কিছু নয়।

দু'টি হাতে আলতো যদি

চাপ দাও, দূরে রাখো ভয়

সম্পূর্ণ হবে ভাঙন।

ভাঙছো যখন অবহেলায়

ভাঙো জলের মতন

ছায়ার মতন ভাঙো।

.........

Mailing List