যৌনতা নিয়ে কামসূত্রের এই পাঁচ বিধান জানেন কি?

যৌনতা নিয়ে কামসূত্রের এই পাঁচ বিধান জানেন কি?
14 Jan 2022, 08:49 PM

যৌনতা নিয়ে কামসূত্রের এই পাঁচ বিধান জানেন কি?

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন : প্রাচীন ভারতবর্ষ ছিল সব দিক থেকে সমৃদ্ধ। স্থাপত্য, অর্থ প্রাচুর্য, শিক্ষা, ব্যবসা, বাণিজ্য এবং নারী পুরুষের পারস্পরিক সম্পর্ক। শুধু যে সমৃদ্ধ ছিল তাই নয় কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রাচীন ভারতের মানুষদের চিন্তা ভাবনা তাদের আধুনিক মনস্কতা আজ অবাক করে আমাদের। এই আধুনিক যুগে বাস করেও আমরা প্রকাশ্যে 'সেক্স' নিয়ে আলোচনা করতে লজ্জা পাই। কিন্তু সেই সময়ের মানুষের চিন্তা ভাবনা এইসব দিক দিয়ে ছিল ভীষণই আধুনিক। তাদের কাছে জীবনের আর পাঁচটা বিষয়ের মতোই যৌনতাও ছিল একটি খুবই সাধারণ ব্যাপার।

 

যৌনতা বিষয়ে দ্বিতীয় শতকে লেখা প্রাচীন ভারতের বিখ্যাত গ্রন্থ কামসূত্রের কথা আমরা অনেকেই জানি। এই গ্রন্থেই স্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে যে নিয়মিত শারীরিক মিলন স্বাস্থ্যের পক্ষে ঠিক কতটা উপকারী। শুধু তাই-ই নয়, ঠিক কোন উপায়ে সম্পূর্ণ পরিতৃপ্তি পাওয়া যায় তার ও নানান উপায়ও বলা আছে এখানে।

 

জেনে নিন কামসূত্র অনুযায়ী শারীরিক মিলনের প্রধান পাঁচ নিয়ম কী কী

 

মিলনের ক্ষেত্রে প্রাচীনকাল থেকেই আমাদের দেশে বেশ কয়েকটি নিয়ম বা প্রথা মেনে চলা হতো। যেগুলোর অবশ্যই বিজ্ঞান সম্মত যুক্তি রয়েছে। এগুলির মধ্যে প্রথমত এবং প্রধান বিষয়টি হলো মহিলাদের ঋতুস্রাব চলাকালীন প্রথম চার দিন কোনও রকম ভাবেই শারীরিক মিলনে লিপ্ত হওয়া যাবে না। এতে জীবাণুসংক্রমণ হতে পারে। তবে আপনি যদি সন্তান ধারণের পরিকল্পনা করে থাকেন তাহলে অবশ্যই ঋতুস্রাব শেষ হওয়ার ১২ থেকে ১৫ দিনের মধ্যে অতি অবশ্যই সঙ্গীর সঙ্গে মিলিত হতে হবে।

 

কামসূত্রের নিয়ম অনুযায়ী, শারীরিক মিলনের জন্য আদর্শ সময় হলো রাতের প্রথম প্রহর। মধ্যরাত্রি পেরিয়ে গেলে কখনওই মিলিত হওয়া উচিত নয়, কারণ আপনি যদি সন্তান ধারণের পরিকল্পনা করে থাকেন তাহলে সেই সন্তান জন্ম নিলে তার স্বাস্থ্য ভাল হয় না।

 

আপনার স্বামী বা সঙ্গী যখন চুড়ান্ত হতাশায় ভুগছেন অথবা যদি তিনি ক্লান্ত থাকেন, সেই সময়ে তার সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হওয়া একেবারেই উচিত নয়। কারণ এর ফলে আপনার সঙ্গীর মধ্যেকার মধ্যে থাকা নেতিবাচক প্রভাব আপনার মধ্যে প্রবাহিত হতে পারে।

 

গর্ভাবস্থায় শারীরিক মিলন থেকে বিরত থাকার বিধান ও রয়েছে কামসূত্রের এই খণ্ডে। এখনকার চিকিৎসকদের মতোই প্রাচীন কালেও এই বিধান ছিল। শুধু তাই নয় শিশু জন্মের পরেও বেশ কিছুদিন যে কোনো প্রকার শারীরিক মিলন থেকে বিরত থাকার বিধান দেওয়া হয়েছে এই গ্রন্থে। কারণ মনে করা হয় এই সময়ে শারীরিক মিলনে লিপ্ত হলে শিশুর শারীরিক এবং মানসিক বিকাশ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

 

প্রাচীন গ্রন্থ কামসূত্র অনুযায়ী যৌনতা বা যৌন সম্পর্ক নিয়ে ধারণা বা জ্ঞান কেবলমাত্র পুরুষদের নয়, মহিলাদের ও থাকা দরকার। এতে করে তাদের যৌন জীবন আরও বেশি সুখ এবং সমৃদ্ধিতে ভরে ওঠার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

ads

Mailing List