দিদির ধমক, প্রিয় পকোড়া খাওয়া ছাড়লেন ঝালদার সুরেশ

দিদির ধমক, প্রিয় পকোড়া খাওয়া ছাড়লেন ঝালদার সুরেশ
01 Jun 2022, 10:00 PM

দিদির ধমক, প্রিয় পকোড়া খাওয়া ছাড়লেন ঝালদার সুরেশ

 

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: পুরুলিয়া জেলার প্রশাসনিক বৈঠকের মঞ্চ থেকেই তাঁকে পকোড়া খেতে নিষেধ করেন তাঁর শ্রদ্ধেয় ‘দিদি’ তথা রাজ্যের মু্খ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিদির নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে মেনে তাই প্রিয় পকোড়া খাওয়া ছেড়ে দিলেন ঝালদা পুরসভার চেয়ারম্যান সুরেশ আগরওয়াল।

ঝালদা পুরপ্রধান তথা স্থানীয় তৃণমূল নেতার এখন ওজন প্রায় ১২৫ কেজি। সকালে ওঠে তাঁর পকোড়া খাওয়ার অভ্যাস অনেক পুরনো। প্রশাসনিক সভায় তাঁর এই অভ্যাসের কথা শুনে কার্যত আঁতকে উঠেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার পুরুলিয়ার প্রশাসনিক বৈঠকের সময় ঝালদার পুরপ্রধানকে প্রকাশ্যেই মুখ্যমন্ত্রী জিজ্ঞাসা করেন, তোমার এত বড় ভুঁড়ি কেন?' সুরেশের উত্তরের অপেক্ষা না করেই ‘মধ্যপ্রদেশ’ কমাতে তাঁকে একগুচ্ছ টিপস দেন মুখ্যমন্ত্রী। আর দলনেত্রীর পরামর্শ মেনে খাবারে কোপ পড়েছে সুরেশ আগরওয়ালের। তাঁকে তেলজাত খাবার খেতেও নিষেধ করেন মমতা। রোগা হওয়ার 'সহজ' উপায়ও বাতলে দেন তিনি। সুরেশ আগরওয়াল জানিয়েছেন, দিদির কথা শুনে তিনি পকোড়া খাওয়া ছেড়ে দিয়েছেন।পুরুলিয়ার প্রশাসনিক বৈঠকে ঝালদার সমস্যা নিয়ে কথা বলার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে দাঁড়াতে বলেন। আর তারপরই পুরপ্রধান সুরেশকে দেখে মুখ্যমন্ত্রী চমকে যান।

তাঁর স্বাস্থ্য আর খাওয়াদাওয়া নিয়ে একের পর এক প্রশ্ন করতে থাকেন। তখনই উঠে আসে পকোড়া প্রসঙ্গ। সুরেশের কথায়  দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর নির্দেশই শীরোধার্য। তিন আরও বলেন, দিদি আমার স্বাস্থ্য নিয়ে এতো খোঁজ নিলেন, এত পরামর্শ দিলেন, তাই দিদির কথাই শোনা উচিত। তবে খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর খোঁজ খবর নেওয়ায় খুশি আর ধরছে না সুরেশের।

Mailing List