পাড়ার দুর্গাপুজো মণ্ডপে স্বামীর নাচানাচি না পসন্দ, গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী বধূ

পাড়ার দুর্গাপুজো মণ্ডপে স্বামীর নাচানাচি না পসন্দ, গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী বধূ
06 Oct 2022, 11:15 PM

পাড়ার দুর্গাপুজো মণ্ডপে স্বামীর নাচানাচি না পসন্দ, গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী বধূ

 

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান

 

পাড়ার দুর্গাপুজো মণ্ডপে স্বামীর নাচানাচি পছন্দ না হওয়ায় গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী হলেন এক গৃহবধু। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়া শহরের পানুহাটের দাসপাড়ায়। মৃতার নাম চিন্তা দাস (২৭)। বধূর মৃতদেহের  ময়নাতদন্ত করার পাশাপাশি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। শারদোৎসবের মধ্যে এক বধূর আত্মঘাতী হওয়ার এমন কারণ জেনে স্তম্ভিত কাটোয়াবাসী।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, বধূ চিন্তা দাসের বাবার বাড়ি কাটোয়া মহকুমার কেতুগ্রাম থানার গঙ্গাটিকুরি গ্রামে। তাঁর স্বামী মিঠুন দাস এক ডেকরেটর ব্যবসায়ীর কাছে শ্রমিকের কাজ করেন। তাঁদের দুই শিশুসন্তান রয়েছে। ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার মহা নবমীর দিন রাতে। পরিবার সদস্যদের কথায় জানা গেছে, পানুহাটের দাসপাড়ায় দূর্গাপূজোর আয়োজন করেছিল স্থানীয় একটি ক্লাব। সন্তানদের সঙ্গেনিয়ে নবমীর রাতে ওই পুজোমণ্ডপে গিয়েছিলেন চিন্তা দাস। ওই সময়ে পূজো মণ্ডপের বক্সে বজেচলা গানের তালে পাড়ার বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে নাচানাচি করছিলেন মিঠুন। স্বামীর ওই নাচানাচি পছন্দ হয়নি বধূ চিন্তার। বিষয়টি নিয়ে রাতে বাড়িতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি হয়। তারপর সকলে খাওয়া দাওয়া সেরে ঘুমিয়ে পড়লে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন চিন্তা। স্ত্রীর আর্তনাদ শুনে ঘুম ভেঙে যায় মিঠুনের। তিনি স্ত্রীর শরীরের আগুন নেভানোর পাশাপাশি পরিবারের বাকি লোকজনকে চিৎকার করে ডাকাডাকি করেন। স্ত্রীর শরীরের আগুন নেভাতে গিয়ে স্বামীও অল্প-বিস্তর অগ্নিদগ্ধ হন। তারপর সকলে মিলে বধুর শরীরের আগুন নিভিয়ে দ্রুত তাকে কাটোয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি।চিকিৎসাধীন অবস্থায় দশমীর দিন কাটোয়া হাসপাতালে বধূর মৃত্যু হয়। 

Mailing List