পহেলা এপ্রিল, রাজশাহী কলেজের শুভ জন্মদিন, স্মৃতিচারণায় প্রাক্তন অধ্যক্ষ

পহেলা এপ্রিল, রাজশাহী কলেজের শুভ জন্মদিন, স্মৃতিচারণায় প্রাক্তন অধ্যক্ষ
01 Apr 2022, 10:30 AM

পহেলা এপ্রিল, রাজশাহী কলেজের শুভ জন্মদিন, স্মৃতিচারণায় প্রাক্তন অধ্যক্ষ

 

হাবিবুর রহমান

 

১৮৭৩ খ্রিষ্টাব্দে ০১ এপ্রিল ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাজশাহী কলেজের প্রদীপ্ত যাত্রার সূচনা হয়। আজ পহেলা এপ্রিল। ১৫০তম জন্মদিনে দুর্দমনীয় প্রজ্জ্বলিত রত্নখনি রাজশাহী কলেজের জন্য অফুরন্ত ভালবাসা।

 

শুভ জন্মদিন।

বিনয়াবনত শ্রদ্ধা আর কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি কলেজটি প্রতিষ্ঠায় যাঁরা মূল ভিত্তি রচনায় ঐতিহাসিক ভূমিকা ও চিরস্মরণীয় অবদান  রেখেছেন তাঁদের। তাঁরা আমাদের আমাদের প্রভা, আধুনিক শিক্ষা বিস্তারের কিংবদন্তি জনক এবং তাঁরা আমাদের নিকট চির নমস্য।

১৮২৮ খ্রিঃ রাজশাহী শহরে বেসরকারী প্রচেষ্ঠায় স্হাপিত বাউলিয়া ইংলিশ স্কুলটি সরকার ১৮৩৬ খ্রিঃ ২০ জুন রাজশাহী জেলা স্কুল নামকরণ করেন। তদানিন্তন রাজশাহী জেলার দুবলহাটির দানবীর ও শিক্ষানুরাগী  রাজা বাহাদুর হরনাথ রায় চৌধুরীর অসামান্য অর্থানুকূল্যে উচ্চ শিক্ষার দ্বার উন্মোচিত হয়। এ অতুল্য দানের ফলশ্রুতিতে রাজশাহী জেলা স্কুলে মাত্র ০৬ জন ছাত্র নিয়ে ফার্স্ট আর্টস (এফ. এ) ক্লাস চালুর অনুমতি প্রদানের মাধ্যমে  রাজশাহী কলেজের ঐতিহাসিক বুনন যাত্রা শুরু। এবং স্বল্প সময়ের ব্যবধানে সার্বিক সূচকে কলেজটি প্রসিদ্ধি অর্জন করায় ১৮৭৮ সালে রাজশাহী কলেজ প্রথম শ্রেণির মর্যাদা লাভ করে। কলেজটিতে ১৮৭৮, ১৮৮১ ও ১৮৮৫ সালে যথাক্রমে বিএ, এমএ ও আইন এবং অনার্স কোর্স চালু হয়। শিক্ষা, সাহিত্য, শিল্প - সংস্কৃতি বিবিধ ধারায় রাজশাহী কলেজকে অনন্য ও অপ্রতিরোধ্য যাত্রার যশোরাশি করে কীর্তিমান বহু অধ্যক্ষ ও অসাধারণ পাণ্ডিত্যসম্পন্ন অসংখ্যক শিক্ষক। আর এ কারণেই পূর্ব বাংলায় একমাত্র রাজশাহী কলেজ কলকাতার প্রেসিডেন্সী কলেজের সমমর্যাদার ছিল। বিনম্র চিত্তে সকল যশস্বী অধ্যক্ষ ও অসাধারণ পাণ্ডিত্যসম্পন্ন শিক্ষাগুরুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। ১৮৭৪ খ্রিঃ প্রতিষ্ঠিত জুনিয়র মাদ্রাসা ( বর্তমানে হাজী মুহম্মদ মুহসীন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়), ১৯০৪ খ্রিঃ স্থাপিত হেমন্তকুমারী সংস্কৃত কলেজ  ও ১৯৩৬ খ্রিঃ প্রতিষ্ঠিত বসন্ত কুমার এগ্রিকালচারাল ইনস্টিটিউট রাজশাহী কলেজের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ছিল এবং রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষের দ্বারা পরিচালিত হতো।

কলেজ প্রতিষ্ঠায় অবদানঃ রাজা বাহাদুর হরনাথ রায় চৌধুরী, রাজা বাহাদুর প্রমথনাথ রায়, হযরত শাহ মখদুম রূপোশ ( রহঃ) ওয়াকফ এস্টেট, রাজশাহী অ্যাসোসিয়েশন, হাজী লাল মোহাম্মদ সরদার, রাজা বসন্ত কুমার রায় মহারাণী শরৎ সুন্দরী দেবী, মহারাণী হেমন্ত কুমারী দেবী, রাণী মনোমোহিনী দেবী, হাজী মুহম্মদ মহসীন শিক্ষা ফাণ্ড, কুমার শরবিন্দু রায়, খান বাহাদুর আহছানউল্লা, স্যার জোসেফ ব্যামফিল্ড ফুলার, রাজা রাজকুমার সরকার (স্যার যদুনাথ সরকারের বাবা), শরৎ কুমার রায় বাহাদুর, রমাপ্রসাদ চন্দ্র, খান বাহাদুর এমাদ উদ্দীন আহমেদ, রাজা প্রমদনাথ রায়, রাজা কৃষ্ণেন্দ্র রায়, মীর্জা মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, খান বাহাদুর আব্দুর রশিদ খান চৌধুরী, খান বাহাদুর এরশাদ আলী খান চৌধুরী, মোহাম্মদ আব্দুল হামিদ খান মিয়া,ব্যারিস্টার আশরাফ আলী খান চৌধুরী, ইতিহাসবিদ অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, জননেতা মাদার বখ্শ জাতীয় চার নেতার অন্যতম নেতা এ এইচ এম কামারুজ্জামান, চন্দ্র শেখর রায়,  ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট ওয়াজির আলী, অধ্যাপক মওলানা হায়দার আলী, ডাঃ সৈয়দ মোহাম্মদ শফি, শেখ উমেদ আলী, শশী শেখরেশ্বর রায়, আবুল ফজল শামসুল ইসলাম, শেফাতুল্লা, আব্দুল খালেক খান চৌধুরী, জমিদার মুহাম্মদ আব্দুল হাকিম খান চৌধুরী, আইনজীবী আজিজুল হক, মৌলভী কফিলউদ্দীন আহম্মদ, লেখক ও সাংবাদিক আব্দুস সামাদ প্রমুখ। এছাড়া রাজশাহীর তৎকালীন টমটম চালকগণ যাঁরা গরিব শিক্ষার্থীদের জায়গিরদার ছিলেন।

 

রাজশাহী কলেজের কিংবদন্তিতুল্য এমন অনেক শিক্ষার্থী প্রতিষ্ঠানটিকে খ্যাতির চূড়ায় পৌঁছে দিয়েছেন এবং  যাঁরা ব্রিটিশ ভারত ও পূর্ব বাংলায়  জননন্দিত স্বনামে। তাঁদের অন্যতম হলেন, খান বাহাদুর চয়েন উদ্দীন আহমদ, শ্রী রাধিকা মোহন মৈত্র, খান বাহাদুর  এন, এন, লাহিড়ী, প্রখ্যাত গবেষক ও ঔপন্যাসিক প্রমথনাথ বিশী,

স্যার যদুনাথ সরকার, প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ  অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, পঞ্চকবির অন্যতম রজনীকান্ত সেন, ঋত্বিক ঘটক, খান বাহাদুর এমাদ উদ্দীন আহমদ, কাজী মোতাহার হোসেন, মুহম্মদ মনসুর উদ্দীন, অধ্যাপক ড. কাজী আব্দুল মান্নান, খান বাহাদুর সৈয়দ আবুল মজিদ, শহিদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান, অধ্যাপক ড. ময্হারুল ইসলাম, বিচারপতি রাধা বিনোদ পাল, অধ্যাপক নবনী প্রসাদ চন্দ্র, সাদত আলী আকন্দ, জননেতা মাদার বখশ, সুদর্শন চক্রবর্তী, মোহাম্মদ বরকতউল্লাহ, সাহিত্যিক অধ্যাপক আব্দুল হক,স্থপতি মাজহারুল ইসলাম, অধ্যাপক এম, আর সরকার, অধ্যাপক এম, এ, রকিব, অধ্যাপক শিবপ্রসন্ন লাহিড়ী,  অধ্যাপক আব্দুল করিম মণ্ডল, অধ্যাপক আনোয়ার পাশা, অধ্যাপক এবনে গোলাম সামাদ, পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম. এ ওয়াজেদ মিয়া, মীর্জা গোলাম হাফিজ, বিচারপতি মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান শেলী, বিচারপতি বদরুল হায়দার চৌধুরী,  অধ্যাপক এমাজউদ্দীন, অধ্যাপক ড. এম শমশের আলী, অধ্যাপক এম. এন. হুদা, কাজী জাফর আহমেদ, অধ্যাপক মনিরুজ্জামান, ভাষা সংগ্রামী নাট্যকার অধ্যাপক মমতাজ উদ্দীন আহমেদ, নাট্যকার জেসমিন চৌধুরী, ডাঃ গোলাম মাওলা, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, অধ্যাপক মুহম্মদ একরামুল হক, এয়ার ভাইস মার্শাল আবু তাওয়াব, সাবেক আইজিপি তৈয়ব উদ্দীন আহমেদ,  এ,কে, খন্দকার, মুহম্মদ সুলতান, জনাব এমরান আলী সরকার, রাজনীতিবিদ মোঃ আনোয়ার জাহিদ, অধ্যাপক মুখলেসুর রহমান, ভাষাসংগ্রামী অ্যাডভোকেট গোলাম আরিফ টিপু, প্রফেসর অরুণ কুমার বসাক, আব্দুল মতিন পাটোয়ারী, প্রফেসর খন্দকার সিরাজুল হক,প্রফেসর ড. আব্দুল খালেক, প্রফেসর সনৎকুমার সাহা, সাংবাদিক আব্দুস সামাদ, শামসুল হক কোরায়েশী, অধ্যাপক ক্ষিতিশ চন্দ্র সরকার, শ্রী কালিনাথ চৌধুরী,এয়ার ভাইস মার্শাল এম. কে. বাসার, সুরেন্দ্র নাথ চট্টোপাধ্যায়, রমেশ চন্দ্র সেন, নগেন্দ্রনাথ, জননেতা আতাউর রহমান, মজুমদার , বিমল চন্দ্র গুহ সহ অনেক কৃতী শিক্ষার্থী।

অধ্যক্ষ হিসেবে যাঁরা বরেণ্য জ্ঞানে, প্রজ্ঞায় ও কর্মে তাঁরা হলেন, রাজশাহী জেলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক বাবু হরগোবিন্দ্র সেন, মি. এফ. টি ডাউডিং, মি. এ. সি এডওয়ার্ড, মি. ডাব্লিউ. বি.  লিভিংস্টোন, রায় কুমুদিনী কান্ত ব্যানার্জী বাহাদুর, যিনি রাজশাহী কলেজের রেনাসাঁর স্রষ্টা,  মি. টি, টি, উইলিয়ামস যিনি

 রায় কুমুদিনী কান্ত  ব্যানার্জীর পর রাজশাহী কলেজকে ভালবেসেছিলেন মনে - প্রাণে। মি. ভূপতি মোহন সেন,  ড.ডাব্লিউ.  এ. জেংকিন্স,   ড. প্রভূদত্ত শাস্ত্রী ( পি, ডি, শাস্ত্রী),  মি. জি, এম বোস,  ড. এস, কে,  ব্যানার্জী,  ড. স্নেহময় দত্ত সহ ১৯ জন অধ্যক্ষ দেশ ভাগের পূর্বে দায়িত্ব পালন করেছেন।

দেশ ভাগের পর প্রথম অধ্যক্ষ দেশ বরেণ্য পণ্ডিত ড. মমতাজ উদ্দিন আহমেদ,  যিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় ভাইস চ্যান্সেলর হন। এরপর  ১৯৫০ খ্রিঃ অধ্যক্ষ পদে যোগদান করেন ইংরেজি সাহিত্যের সুপণ্ডিত ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বপ্নদ্রষ্টা এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য ড. ইতরাত হোসেন জুবেরী। ড. জুবেরী স্যারের পর ১৯৫১ সালে তিনজন অধ্যক্ষ স্বল্পতম সময়ের জন্য যোগদান করেন। ১৯৫২সালে যোগদান করেন মি. সলমন চৌধুরী। এসময় ভাষা আন্দোলনে ঢাকার রাজপথে সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় রাজশাহী কলেজকে কেন্দ্র করে তীব্র সংগ্রাম শুরু হয়। গঠিত হয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ।বায়ান্নর ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত হলে ঔ দিনে দিবাগত রাতে রাজশাহী কলেজ মুসলিম ছাত্রাবাসে D --ব্লকের পূর্ব পাশে সংগ্রাম পরিষদ ইট,  বালি ও কাদা- মাটি দিয়ে শহিদদের স্মরণে একটি স্মৃতি স্তম্ভ / শহিদ মিনার তৈরি করেন। রাজশাহী'র ভাষা সংগ্রামী ও ভাষা শহিদ এবং সর্বস্তরের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে  দাবি  করে আসছে,  এই শহিদ মিনারটিকে বাংলাদেশের প্রথম শহিদ মিনার হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য।

 

১৯৫৪ প্রফেসর মোঃ শামস - উল- হক ( সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী) অধ্যক্ষ হয়ে আসেন। তাঁর সময়ে কলাভবন এবং লাইব্রেরি ভবনটি নির্মিত হয়। ১৯৫৬ সালে প্রফেসর ড. আব্দুল হক এবং  ১৯৫৯ সালে অত্যন্ত চৌকস কর্মকর্তা প্রফেসর শামসুজ্জামান চৌধুরী যোগদান করেন। পরবর্তীতে তিনি রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং চাকুরি অবস্থায় সপরিবারে অ্যামেরিকায় চলে যান। ১৯৬১-৬৯  পর্যন্ত দীর্ঘ সময়  প্রফেসর এম. এ, হাই অধ্যক্ষ হিসেবে ছিলেন। প্রফেসর হাই স্যারের পর রাজশাহী কলেজের ছাত্র ও ইংরেজি সাহিত্যে যশস্বী শিক্ষক প্রফেসর ইলিয়াস আহমেদ অধ্যক্ষ হন। প্রখর মেধাবী ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বর্ণপদক প্রাপ্ত  শিক্ষার্থী প্রফেসর ড. এম শামসুদ্দীন মিয়া মুক্তিযুদ্ধ কালীন অধ্যক্ষ হিসেবে  কলেজের জন্য শক্ত হাল ধরেন।  বাংলা ও ইংরেজি সাহিত্যের ওপর তাঁর সমান দখল ছিল। ডিপিআই ও রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। প্রথিতযশা শিক্ষাবিদ প্রফেসর ড. নুরুর রহমান ( ১৯৭২ - ৭৬) ও প্রফেসর ড. এম নইমুদ্দিন ( ১৯৭৬ - ৭৯)  অত্যন্ত সফলতা ও দক্ষতার সাথে অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। এরপর একজন জাত শিক্ষক প্রফেসর লুৎফুর রাহমান অধ্যক্ষ হিসেবে একাডেমিক ও ভৌত অবকাঠামোর টেকসই  উন্নয়নে  গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। রাজশাহী কলেজের সফল শিক্ষার্থী ড. মোঃ তামিজুল হক কর্মঠ অধ্যক্ষ হিসেবে শিক্ষক - শিক্ষার্থীর নিকট সমান জনপ্রিয় হন। প্রফেসর ড.মোঃ আবুল কাশেম স্যার তাঁর অপরিসীম ধৈর্য, আগ্রহ এবং একই সাথে তাঁর নিপূণ কার্যদক্ষতা দিয়ে কলেজকে হৃষ্টপুষ্ট করেন সর্বক্ষেত্রে। কলেজের শতবর্ষ উৎসব উদ্ যাপনের নায়ক তিনি। অত্যন্ত সজ্জন, সৎ ও বিনয়ী ব্যাক্তিত্ব  অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ সেরাজুল ইসলাম স্যারের সময় ইংরেজি ভবনটির দ্বিতল পর্যন্ত নির্মিত হয়। পরবর্তীতে  রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান  ও  শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সততা, দক্ষতা ও সাহসিকতা নিয়ে ১৯৯৩ থেকে ১৯৯৫ পর্যন্ত অধ্যক্ষের চেয়ারের মর্যাদাকে সমুন্নত  করেছেন প্রফেসর শামস্ উদ্দীন আহমেদ। প্রফেসর এ. এস . এম. মোয়াররফ  ইংরেজি সাহিত্যের খ্যাতিমান শিক্ষক।

  তিনি দীর্ঘ চাকুরী জীবনের সিংহভাগই কাটিয়েছেন রাজশাহী কলেজে এবং তাঁর অসংখ্যক কৃতী শিক্ষার্থী আজ দেশ - বিদেশে কর্মসফলতার জন্য খ্যাতি অর্জন করেছেন। ১৯৯৫ - ৯৬ পর্যন্ত তিনি অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন। নিজস্ব অর্থায়নে উন্নয়ন কাজ করা ধারার সূচনা করেন প্রফেসর এম. ইউনূস আলী দেওয়ান ১৯৯৭- ৯৮ পর্যন্ত অধ্যক্ষের  দায়িত্ব পালন কালে।  রাজশাহী কলেজের একমাত্র নারী অধ্যক্ষ প্রফেসর আখতার বানু। অন্যায়ের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান ও আপোষহীন নেতৃত্ব উন্নয়নের পাশাপাশি  'ঐতিহ্যে রাজশাহী কলেজ স্মারকগ্রন্থ ' অমূল্য দলিল রচনার কারিগর তিনি। প্রফেসর মোঃ আব্দুল হাই অত্যন্ত স্বল্প সময়ে অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন কালে পরীক্ষার পরিবেশ পুনরুদ্ধারে সাহসী ভূমিকা পালন করেন। প্রফেসর ড. কে. এম. জালালউদ্দীন আকবর অত্যন্ত মার্জিত, অতি বিনয়ী ও নিরহংকার ছিলেন। তাঁর সময়কালে আমি সহকারী অধ্যাপক হিসেবে রাজশাহী কলেজের রসায়ন বিভাগে যোগদান করি। অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল বাছির,  একজন প্রকৃত শিক্ষক ও  একজন সফল প্রশাসকের আদর্শ ছিলেন। তাঁর  সততা, পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা ও সাহসিকতার তারিফ করতে হয়। বিশৃঙ্খল একাডেমিক পরিবেশের উন্নয়নের দ্বার উন্মোচিত করেন তিনি। বাংলা সাহিত্যের পণ্ডিত,  সুলেখক ও কবি প্রফেসর ড. মোঃ আশ্ রাফুল ইস্ লামের অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান ২০০৪ সালে। নম্র- ভদ্র ও সদা নবীন থাকা তাঁর বৈশিষ্ট্যের অন্যতম দিক। প্রফেসর মোঃ শামস্ উল হক তাঁর সময়কালকে পরিকল্পিত ও  পরিপূর্ণভাবে কলেজের উন্নয়নে কাজে লাগিয়েছেন বেশ দক্ষতা এবং  দৃঢ়তার সাথে। তাঁর সময়ে চল্লিশের অধিক নতুন পদ সৃষ্টি হয়। পুলিশ ফাঁড়ি স্হাপন তাঁর হাত ধরে। প্রফেসর ড. আলী রেজা মুহম্মদ আব্দুল মজিদ স্যার একজন অত্যন্ত সৎ,  অমায়িক ভদ্র ও ধর্মপরায়ণ স্বভাবের মানুষ। কলেজের ডিজিটাল যুগের সূচনার ধারক তিনি। কো-কারিকুলার এবং এক্সট্রা কারিকুলার কার্যক্রমের নতুন ধারায় শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার উদ্যোগ তিনি গ্রহণ করেন।

প্রকৃত অর্থে শক্ত মূল ভিত্তির গাঁথুনি দিয়ে রাজশাহী কলেজকে সাজিয়েছেন উপরিউক্ত সর্বজন শ্রদ্ধেয়  অধ্যক্ষগণ। আর বহু জ্ঞানতাপস নিবেদিত মহান শিক্ষাগুরুর সুনিপুণ হাতের ছোঁয়ায় অসংখ্যক কৃতী শিক্ষার্থী সৃষ্টি রাজশাহী কলেজকে করেছে দেশ সেরা। বর্তমান কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেক তাঁর মেধা - মনন ও শ্রম দিয়ে কলেজের একাডেমিক ও ভৌত অবকাঠামো উন্নয়নে নিরবচ্ছিন্ন ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন সম্মানিত সহকর্মীদের নিয়ে। এই শুভক্ষণে সকল অংশীজনকে জানাচ্ছি অভিনন্দন,  আন্তরিক শুভেচ্ছা আর  ভালবাসা।

জয় হোক রাজশাহী কলেজের।

লেখক - প্রাক্তন অধ্যক্ষ রাজশাহী কলেজ।

Mailing List