মৌতড়ের কালী পুজোর সাথে থানার কালি পুজোতেও ছাগ বলি হল পুরুলিয়ায়

মৌতড়ের কালী পুজোর সাথে থানার কালি পুজোতেও ছাগ বলি হল পুরুলিয়ায়
05 Nov 2021, 06:36 PM

মৌতড়ের কালী পুজোর সাথে থানার কালি পুজোতেও ছাগ বলি হল পুরুলিয়ায়

 

আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, পুরুলিয়া

 

করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই সরকারের বিধি নিষেধ মেনে কয়েক হাজার ছাগ সহ একাধিক মোষ বলি হলো পুরুলিয়া তথা জেলার সব থেকে বড় জনপ্রিয় মৌতড়ের বড় মা কালীপুজোয়। প্রাচীন এই পুজোয় মনস্কামনা পূরণের আশায় হাজির হয়েছিলেন রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজার হাজার দর্শনার্থী।

 

এবারের এই পুজোয় করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে আগে থেকেই মেলা বন্ধ করে দিয়েছিল পুলিশ প্রশাসন। তবে সরকারের বিধি নিষেধ মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মায়ের পুজোর কোন খামতি ছিল না। অন্যান্য বার মৌতড়ের মা বড় কালীর পুজোয় কয়েক লক্ষ মানুষের জমায়েত হত কিন্তু এবার তা হয় নি।তবে লক্ষাধিক জমায়েত হয়নি এবার ঠিকই কিন্তু বেশ কয়েক হাজার মানুষের জমায়েত হয়েছিল এবারের মৌতড়ের মা বড় কালীর পুজোয়। 

 

এবারে এসেছিল আসানসোল ও বর্ধমান থেকে প্রচুর দর্শনার্থী। বর্ধমানের মেমারি থেকে আগত দর্শনার্থী রোহিত চ্যাটার্জি, বিবেক চ্যাটার্জি সহ অনেকেই জানায় তারা এত বড় পুজো এই প্রথমবার দেখলো। এছাড়া তারা হতবাক হয়েছেন এত সংখ্যায় পশু বলি দেওয়ার ঘটনা স্বচক্ষে দেখে। মন্দির প্রাঙ্গণে ব্যাপক সংখ্যায় ভিড় সামালাতে গ্রামবাসীদের সাথে স্থানীয় ক্লাব ও প্রশাসনের সঙ্গে ছিল বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সদস্য কর্মীরাও।

 

পুজোর সময় ভিড় সামলাতে তেমন সমস্যা না দেখা দিলেও, পুজোর রাত বারোটা থেকে পরের দিন দুপুর পর্যন্ত   চলা পশু বলি দেখতে মানুষের আবেগের বাঁধ ভেঙেছিল বলির সময়। ভিড় সামলাতে হাঁড়িকাঠের চারদিকে দেওয়া হয়েছিল লোহার শক্ত মজবুত বেড়া। মৌতড়ের কালীপূজার দিনই যে কেবলমাত্র পশু বলি হয় এমনটা নয়। এই কালি পুজোতে বারো মাসে একদিন বাদে বছরের সব দিনই এখানে দেবীর উদ্দেশ্যে ছাগ উৎসর্গ করা হয়। শুধু দুর্গাপূজার অষ্টমীর দিন বলি হয় না এখানে।

 

এদিকে পুরুলিয়ায় অলিখিত নিয়ম অনুসারে সমস্ত থানাতেই করা হয় কালীপুজো। শ্যামার আরাধনার জন্য থানার পিছনে বা সামনেই প্যান্ডেল করে বা মন্দিরে পুজোয় সামিল হন ওসিরা। থানায় থানায় ওসি দের নামেই হয় সংকল্প। ওসিরা তাই কালী পুজোর দিনে খাকি উর্দি ছেড়ে অস্ত্রবিরতি করে সার্ভিস রিভলবার আগ্নেয়াস্ত্র জমা রেখে উপবাসে থেকে ধুতি গেঞ্জি উত্তরীয় গায়ে দিয়ে পন্ডিত মশাই এর পাশে বসে হোম, যজ্ঞে, আহুতি দেন তারা। পশু বলি নিষিদ্ধ হলেও অবাধে চলে ছাগ বলি। অন্য ক্ষেত্রে বলির বিরুদ্ধে পুলিশ যতই পদক্ষেপ নেয় না কেন, থানার কল্যাণে ছাগ বলির রেওয়াজ কিন্তু এবারের পুজোতেও ভাঙতে পারলেন না স্বয়ং ওসিরা। যার ফলে এবারেও কালীপুজোয় পুরুলিয়ার নিতুরিয়া, কেন্দা, সাঁতুড়ি থানায় বলি হলো ছাগ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ওসি জানালেন থানার কালীপুজোয় ছাগ বলি অতীত দিনের ঐতিহ্য। তাই নিয়ম মেনে বলি দিতেই হয়। এবারেও তার অন্যথা হয়নি।

ads

Mailing List