এআইএফএফকে সাসপেন্ড করল ফিফা, কি সমস্যা হতে পারে, কোন পথে সমাধান

এআইএফএফকে সাসপেন্ড করল ফিফা, কি সমস্যা হতে পারে, কোন পথে সমাধান
17 Aug 2022, 12:45 PM

এআইএফএফকে সাসপেন্ড করল ফিফা, কি সমস্যা হতে পারে, কোন পথে সমাধান

 

আনফোল্ড বাংলা স্পোর্টস ডেস্ক: ফুটবলপ্রেমি দিবসেই চরম আঘাত ভারতীয় ফুটবলে। এআইএফএফ বা অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশনকে সাসপেন্ড করল ফিফা। তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপের কারণেই ভারতীয় ফুটবল সংস্থাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। সাসপেন্ডের কারণ হিসেবে এমনই জানিয়েছে ফিফা। ফিফার সংবিধান অনুসারে কোনও স্বশাসিত সংস্থায় কোনও তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপ চলে না। অভিযোগ, ফিফার নিয়মাবলি লঙ্ঘন করেছে ভারত, তাই এই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

সোমবার রাতেই ফিফার তরফ থেকে নিষেধাজ্ঞার চিঠি পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই সাসপেনশনের ফলে ভারতে অনূর্ধ্ব-১৭ মেয়েদের বিশ্বকাপ আয়োজন করা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হল। চলতি বছরের অক্টোবর মাসেই এই টুর্নামেন্ট হওয়ার কথা ছিল। এবার টুর্নামেন্টের আয়োজক ছিল ভারত। ফিফার তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, সর্বসম্মতভাবে ফিফার তরফে সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনকে সাসপেন্ড করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। নিয়ামক সংস্থায় তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপের কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গুরুতর ভাবে ফিফার নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে। এই নোটিস দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই সাসপেন্ডের সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। সেই সঙ্গে ফিফা সাফ জানিয়ে দিয়েছে এই অবস্থায় ভারতে বিশ্বকাপ আয়োজন করা যাবে না। পরিস্থিতি পালটালে অবশ্যই বিশ্বকাপের ভবিষ্যৎ নিয়ে ভেবে দেখা হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে ফিফা।

কোন পথে উঠবে নিষেধাজ্ঞা

এই অবস্থায় সাসপেনশান তোলার চেষ্টা করতে আসরে নেমে পড়েছেন দেশের ফুটবল কর্তারা। সক্রিয় হয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারও। নিষেধাজ্ঞা তোলা নিয়ে ফিফা সাফ জানিয়ে দিয়েছে, ফেডারেশন কর্তারা যখন সম্পূর্ণভাবে ফেডারেশনের দায়িত্ব নেবেন, তখনই সাসপেনশন তুলে নেওয়া হবে। তবে আশার কথা একটাই, দ্রুত গোটা সমস্যার সমাধানে আগ্রহী ফিফাও। বিবৃতিতে তাঁরা বলেছে, ভারতীয় ক্রীড়ামন্ত্রকের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। খুব তাড়াতাড়ি এই সমস্যার সমাধান করা যাবে বলেই আশা করছে ফিফা। পরিস্থিতি বুঝে ভারতে বিশ্বকাপ আয়োজন করা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

দায়ী কারা

এই ঘটনার জন্য প্রাক্তন ফুটবলারদের অধিকাংশই দায়ী করেছেন বর্তমান ফেডারেশন কর্তাদের। তাঁদের অভিযোগ, ক্ষমতায় থাকার জন্য তাঁরা নির্বাচন করতে চাননি। তাঁদের এই মানসিকতার জন্যই ভুগতে হচ্ছে ভারতীয় ফুটবলকে। এর ফলে সাম্প্রতিককালে বিশ্বের মঞ্চে যেটুকু এগিয়েছিল ভারতীয় ফুটবল সেটুকুও নষ্ট হয়ে যাবে।

কী কী সমস্যা হতে পারে

অনূর্ধ্ব-১৭ মহিলা বিশ্বকাপ নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রশ্নচিহ্ন। তবে শুধুই এই টুর্নামেন্ট নয়, এই নির্বাসন একাধিক প্রভাব ফেলতে পারে দেশের ফুটবলে। সিনিয়র হোক কিংবা জুনিয়র, ভারতের কোনও জাতীয় দল কোনও আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে পারবে না। তাদের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মঞ্চে নামতে পারবেন না সুনীল ছেত্রীরাও। খেলতে পারবেন না এশিয়ান কাপ। শুধু জাতীয় দলই নয়, এই নির্বাসনের প্রভাব সরাসরি পড়তে চলেছে মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গল উপরও। আগামী ৭ সেপ্টেম্বর ঘরের মাঠে এএফসি কাপের ইন্টারজোনাল সেমিফাইনালে খেলার কথা মোহনবাগানের। কিন্তু নির্বাসন বহাল থাকলে সে ম্যাচে খেলতে পারবে না জুয়ান ফেরান্দোর দল। একই সঙ্গে যতদিন না পর্যন্ত সাসপেনশন উঠছে, ততদিন নতুন কোনও বিদেশি ফুটবলার সই করাতে পারবে না ইস্টবেঙ্গলও। ভারতের ক্লাবে খেলা কোনও বিদেশি এই অবস্থায় অন্য কোনও দেশের কোনও ক্লাবেও যেতে পারবেন না। তবে ঘরোয়া ফুটবল চালাতে কোনও সমস্যা নেই।

Mailing List