দুবছর পর হাসছেন ডাকের সাজ তৈরির শিল্পীরা

দুবছর পর হাসছেন ডাকের সাজ তৈরির শিল্পীরা
08 Sep 2022, 08:58 PM

দুবছর পর হাসছেন ডাকের সাজ তৈরির শিল্পীরা

আনফোল্ড বাংলা প্রতিবেদন: বাঙ্গালীর শ্রেষ্ঠ উত্‍সব দুর্গোত্‍সব। আর এই উত্‍সবকে ঘিরে চরম উন্মাদনার লক্ষ্য করা যায় সকল বাঙালির মধ্যে, শুধু বাঙালির মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় এই উত্‍সবে মেতে ওঠে ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সকল সম্প্রদায়ের মানুষ, আর এই উত্‍সবকে কেন্দ্র করে সারা বছর ধরে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে কঠোর প্রস্তুতি চালিয়ে যায় রাজ্যের বিভিন্ন মৃৎশিল্পী থেকে শুরু করে বিভিন্ন শিল্পীরা, সারা রাজ্যের পাশাপাশি পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দকুমারের মালাকার পাড়ার ডাকের সাজ প্রস্তুতকারক শিল্পীরা। এইবছর পুজোর বাকি হাতে গোনা আর কয়েকটা দিন।

ফলে এই কদিন নাওয়া খাওয়ার সময় নেই তাঁদের। মৃৎশিল্পীদের থেকে বেশী ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন মালাকার পাড়ার মানুষজনেরা। তাঁদের হাতের ছোঁয়ায় তৈরী হয় রকমারী শোলার গয়নার সেট ও ডাকের সাজ। এখনও প্রাচীন বাড়ির পুজোগুলিতে কোথাও কোথাও সোনার গহনা পরানো হলেও বেশির ভাগ প্রতিমার সাজ হিসেবে শোলার গহনার কদর দিন দিন বেড়েছে। প্রতিমার সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে শোলার গয়না তাত্‍পর্যপূর্ণ ভুমিকা গ্রহন করে। বাপ ঠাকুরদার হাত ধরে শোলার গহনা ও ডাকের সাজে হাত পাকিয়েছেন নন্দকুমার ব্লকের মান্দারজাছিয়া গ্রামের ১৫/২০ টি পরিবারের সদস্যরা।

পিতৃ পুরুষের সময় থেকে আজ পর্যন্ত শোলার কাজ মুলত ডাকের সাজ তৈরি করা এই পরিবারগুলির প্রধান জীবিকা। শোলার গহনা দিয়ে বাংলাদেশের ঢাকার ঢাকেশ্বরী দেবীকে সাজানো হত। সেই জন্য শোলার এই গহনাকে বলা হত ঢাকের সাজ। যা পরবর্তীতে ডাকের সাজ নামে পরিচিতি লাভ করেছে। ডাকের সাজ সাধারনত দুই ধরনের হয়।একটি শোলার কাজ, অন্যটি জরির কাজ। ডাকের সাজ তৈরি করতে লাগে শোলা ও জরি।

ডাকের সাজের মধ্যে তৈরি হয় প্রতিমার মুকুট, আঁচলা, চালি, বুক চেলি, ঘাড় বেণী, কলকা ও কান মোগর প্রভৃতি। এছাড়ও শোলার গয়নার মধ্যে তৈরী হয় কানের দুল, মালা, গলার চিক, হাতের বাজু ও ছুড়ি এবং পায়ের নূপুর।শোলার কাজের অর্ডার আসে জেলা সহ ভিন জেলার শিল্পীদের কাছ থেকে। 

গত দুবছর করোনার কারণে সেইভাবে অর্ডার পাওয়া না গেলেও এবার অর্ডার এসেছে মালাকার পাড়ায়। তাই পরিবারের মহিলারা রাতদিন এক করে কাজ করে চলেছে।গত দুবছর খুব কষ্টের মধ্যে তাদের কেটেছে বলেও জানান তারা। তবে এবছর একটু আশার আলো দেখা যাচ্ছে। কলকাতার একাধিক পুজো উদ্যোগতারা ডাকের সাজের অর্ডার দিয়েছেন। ফলে জেলার ও কলকাতার পুজো উদ্যোগতাদের চাহিদা পুরনের জন্য জোর কদমে কাজ করে চলেছে মালাকার পাড়ার পুরুষ মূলত মহিলারা।

Mailing List