এক নজরে এক ডজন গল্প!

এক নজরে এক ডজন গল্প!
18 Sep 2022, 10:30 AM

এক নজরে এক ডজন গল্প!

 

সিদ্ধার্থ সিংহ

 

 

ধরাশায়ী

 

প্রেমিকা এসে বলল, কি গো তোমাকে এত দুখি দুখি লাগছে কেন?

প্রেমিক বলল, আর বোলো না... কালকে যে বক্সারের উপর আমি বাজি ধরেছিলাম, রিংয়ে ওঠার এক মিনিটের মধ্যেই সে ধরাশায়ী হয়ে গেল...

প্রেমিকা বলল, তা হলে এবার বুঝতে পারছ তো আমার কেমন লাগে?

----------------

 

কালসিটে

 

কলিংবেলের শব্দ শুনে শেফালী দরজা খুলতেই দেখলেন পাড়ার বউদি দাঁড়িয়ে আছেন। আসুন আসুন বলে তাঁকে ঘরের ভিতরে নিয়ে এলেন শেফালী। সোফায় বসতে বসতে শেফালীর চোখ কালসিটে পড়ে ঢোল হয়ে আছে দেখে বউদি বললেন, এ কী! তোমার চোখে কী হয়েছে?

শেফালী বললেন, আমার স্বামী আমাকে খুব মেরেছে। বৌদি বললেন তোমার স্বামী তো দিল্লিতে!

শেফালী বললেন, আমি তো সেটাই ভেবেছিলাম...

----------------

 

ইয়া-আ-আ-আ

 

বউ খুব অভিমান করে বলল, তুমি ভীষণ ইয়ে... ঘরে যা আসে তুমি সবসময় নিজের কাছে রেখে দাও। আমাকে কিছুই দাও না।

বর বলল, ঠিক আছে, এ বার থেকে যা আসবে দশ দিন তোমার কাছে থাকবে। দশ দিন আমার কাছে।

এটা শুনেই বউ আল্লাদিত হয়ে চিৎকার করে উঠল, ইয়া-আ-আ-আ... সত্যি?

ঠিক তখনই বর বলল, আজ তোমার বোন আসছে। কুড়ি দিনের জন্য।

---------------------------

 

ছেলে পটিয়ে দে না...

 

মেয়েটি এসে তার বান্ধবীকে বলল, আমি রিলেশনে যেতে চাই। একটা ছেলে পটিয়ে দে না...

বান্ধবীটি বলল, তুই বল না কোন ছেলেটাকে পটাতে চাস। আমি এক্ষুনি ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।

মেয়েটি বলল, তোর বয়ফ্রেন্ডকে।

বান্ধবীটি বলল, ঠিক আছে, পটিয়ে দিচ্ছি। কিন্তু কত নম্বরটা?

-----------------

 

ভরসা

 

খেতে দিতে দিতে বউ বলল, আর কিছু দেব?

বর বলল, দাও।

--- কী দেব?

বর বলল, ডিভোর্স।

--- মানে?

বর বলল, আমাদের বিয়ে হয়েছে ছ'বছর হয়ে গেছে। তার মধ্যে মাত্র একটা বাচ্চা?

বউ বলল, তোমার ভরসায় বসে থাকলে সেটাও হত না।

------------

 

লটারি

 

বউ এসে বলল, শোনো না... তোমাকে একটা কথা বলছি, ধরো তুমি লটারিতে এক কোটি টাকা পেলে, আর সে দিনই আমি কিডন্যাপ হলাম। কিডনাপাররা তোমাকে ফোন করে বলল, আপনি যদি ওই এক কোটি টাকা আমাদের দেন, তবেই আপনার বউকে ফেরত দেব। তখন তুমি কী করবে?

বরের চোখ চকচক করে উঠল। বলল, সে তো ঠিক আছে, কিন্তু কথা হচ্ছে আমার ভাগ্য কি এত ভাল যে, একই দিনে দুটো লটারি পাব?

-------------

 

আমার বউ

 

একটি জটলা দেখে এক সাংবাদিক সেখানে গিয়ে দেখলেন অনেকেই কাঁদছেন। তিনি একটি লোককে জিজ্ঞেস করলেন, আপনি কাঁদছেন কেন?

সেই লোকটা বললেন, আমার বউ বাসে করে যাচ্ছিল। সেই বাসটা নয়নজুলিতে পড়ে গেছে। আমার বউ মারা গেছে।

পাশেই বুক চাপড়ে আরও একজন কাঁদছিলেন। তিনি তাঁকেও জিজ্ঞেস করলেন, আপনি কাঁদছেন কেন?

তিনি শুধু বললেন, আমার বউও ওই বাসে ছিল।

তিন জনের বাইট নিতে পারলে নিউজটা জোরদার হয়। তাই কাঁদতে থাকা আরও একজনকে তিনি জিজ্ঞেস করলেন, আপনি কাঁদছেন কেন?

লোকটা কাঁদতে কাঁদতেই বললেন, আমার বউ ওই বাসটা মিস করেছিল।

----------------

 

চড়

 

সাত দিনের জন্য গিয়ে তিন দিনের মাথায় ফিরে আসা এক বন্ধুকে আরেক বন্ধু জিজ্ঞেস করল, কীরে, তুই না সাত দিনের জন্য ঢাকা গিয়েছিলি? এত তাড়াতাড়ি ফিরে এলি? সব ঘুরেটুরে দেখেছিস?

বন্ধুটি বলল, আর বলিস না, ওখানকার কয়েকটা মেয়ের হাতে এমন চড় খেয়েছি না... পালিয়ে এসে বাঁচলাম।

--- কেন, তুই কী করেছিলি? জিজ্ঞেস করতেই বন্ধুটি বলল, কিচ্ছু না। আমি শুধু ওখানকার কয়েকটা মেয়েকে বলেছিলাম, তোমাদের ঢাকা জায়গাটা খুব সুন্দর।

------------

 

টোকাটুকি

 

জমজ দুই ভাই। একই স্কুলে পড়ে। একই সেকশনে। পরীক্ষা দিয়ে স্যারের কাছে খাতা জমা দিতেই স্যার খাতা নিয়ে দেখতে লাগলেন ওরা নাম, রোল নম্বর, ক্লাস, সেকশন ঠিকঠাক মতো লিখেছে কি না...

আর সেটা দেখতে গিয়েই চমকে উঠলেন স্যার। বললেন, তোরা দু'জন নিজের ভাই না?

সঙ্গে সঙ্গে এক ছাত্র বলে উঠল, হ্যাঁ স্যার।

স্যার জানতে চাইলেন, তা হলে তোরা দু'জন তোদের বাবার নাম আলাদা আলাদা লিখেছিস কেন?

তখন অন্য ছাত্রটি বলল, আমরা যদি এক নাম লিখতাম, আপনিই তো তখন বলতেন, তোরা একজন আর একজনেরটা ঢুকে লিখেছিস। তাই...

-------------

 

পাঁচটা বাচ্চা থাকলেই

 

স্বামী হাঁপাতে হাঁপাতে এসে বউকে বলল, শুনছ, খবরের কাগজে কী লিখেছে দেখো...

বউ বলল, কী লিখেছে?

স্বামী বলল, পাঁচটা বাচ্চা থাকলেই নাকি সরকার থেকে ফ্ল্যাট দেবে।

বউ বলল, আমরা কী করে পাব? আমাদের তো মাত্র তিনটে বাচ্চা।

স্বামী বলল, আমার এক্সের কাছে আরও দুটো বাচ্চা আছে না? ও দুটোকে নিয়ে আসব। তা আমাদের বাচ্চাগুলো কোথায়?

বউ বলল, তুমি একাই কি শুধু খবরের কাগজ পড়ো নাকি? যাদের বাচ্চা তারা নিয়ে গেছে।

-----------------

 

এটিএমে

 

বাসন মাজতে মাজতে বউ বলল, তুমি কত গরিব। কাজ করতে করতে আমার জীবন বেরিয়ে যাচ্ছে!

বর বলল, তোমাকে কে বলেছিল আমাকে বিয়ে করতে?

বউ বলল, বিয়ের আগে তো দিনে দশবার এটিএমে ঢুকতে।

বর বলল, আমি কি আর টাকা তুলতে ঢুকতাম? আমি তো ঢুকতাম এসি-র ঠান্ডা খেতে।

-------------

 

উমমমমমমম্ আঃ...

 

ঘুমের ঘোরেই চিৎ হয়ে তন্ময় বিড়বিড় করে বলতে শুরু করল, উমমমমমমম্ আঃ... উমমমমমমম্ আঃ...

আই লাভ ইউ... উমমমমমমম্ আঃ... উমমমমমমম্ আঃ...

পাশে বউ শুয়ে ছিল। সে খুশিতে ডগমগ হয়ে পাশ ফিরে তন্ময়কে জড়িয়ে বুকে মাথা রেখে বলল, আই লাভ ইউ টু বাবু।

এক মুহূর্তও পেরোল না, তন্ময় ঘুমের ঘোরেই বলল, আমাকে ছেড়ে দাও সোনা। এক্ষুণি বউ চলে আসবে।

--------------

Mailing List